রাফাল নিয়ে রাহুল গাঁধীর লাগাতার হামলা এতটাই কালঘাম ছোটাচ্ছে, যে তার মোকাবিলায় আজ প্রায় সত্তর জন মন্ত্রীকে মাঠে নামালেন প্রধানমন্ত্রী।

রাফাল নিয়ে সব মন্ত্রীকে বোঝাতে নরেন্দ্র মোদী এ দিন বিকেলে ডেকে আনেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল আর প্রতিরক্ষা উৎপাদন সচিব অজয় কুমারকে। সূত্রের মতে, রাহুল গাঁধীর আক্রমণের জবাব দিতে সব মন্ত্রীকে ঠিক মতো বিষয়গুলি বুঝে নেওয়ার নির্দেশ দেন। যাতে সকলে এক সুরে বলতে পারেন। মোদী বলেন, হতেই পারে না জানার কারণেই কংগ্রেস এমন অভিযোগ করছে। কিন্তু আসলে জেনে বুঝেই মিথ্যা বলছেন রাহুল গাঁধী।

কী বোঝানো হল মন্ত্রীদের? রাফালের দাম বলা যাবে না। কারণ, চিন-পাকিস্তানের মতো শত্রুপক্ষ জেনে যাবে কী কী অস্ত্র বিমানে লাগানো হয়েছে। রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা ‘হ্যাল’-কে দিয়ে করানো হয়নি, কারণ তাঁরা ফরাসি সংস্থার থেকে আড়াই গুণ বেশি সময়ে এগুলি তৈরি করবে। অথচ বর্তমান চুক্তি অনুযায়ী প্রথম রাফাল চলে আসবে আগামী বছর সেপ্টেম্বরেই।

আরও খবর: বিতর্কিত বই নিষিদ্ধ করার আর্জি খারিজ সুপ্রিম কোর্টে

অনিল অম্বানীকে বরাত দেওয়ার অভিযোগও মিথ্যা। সব বিমান তৈরি হবে ফ্রান্সে। এটা দুই সরকারের চুক্তি। অফ-সেট নীতি মেনে ফরাসি সংস্থা এ দেশে কাকে বরাত দেবে, তার সঙ্গে সরকারের সম্পর্ক নেই। প্রথমে ঠিক ছিল, মন্ত্রিসভার বৈঠকের কথা আগামিকাল সকালে জানানো হবে। কিন্তু নিজের মন্ত্রীদের থেকেই খবর ‘ফাঁস’ হতে পারে, এই আশঙ্কায় আজ রাতেই অরুণ জেটলিকে সাংবাদিক সম্মেলন করতে পাঠান প্রধানমন্ত্রী।

রাহুল গাঁধীকে তোপ দেগে জেটলি বলেন, ‘‘কংগ্রেসে এক জন ‘অবোধ’, ‘অজ্ঞ’ হলে বাকি সকলেও তা-ই হয়ে যান। এই ছোঁয়াচে রোগটা কংগ্রেসেই থাক।’’ রাহুলের দাবি মেনে যৌথ সংসদীয় কমিটি গঠনও যে বিকল্প নয়— তা বোঝাতে জেটলি বলেন, ‘‘অজ্ঞের অহংবোধকে কোনও কিছু দিয়েই তুষ্ট করা যায় না।’’

এ দিনই অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি অভিযোগ করেন, রাশিয়ার সঙ্গে অস্ত্র কেনার বেলায় ভারতের বেসরকারি সংস্থাকে অনুমতি দিচ্ছে না সরকার, রাফালে কেন দিল? জেটলির জবাব, রাফাল পুরোটাই ফ্রান্সে তৈরি হবে। আর রাশিয়ার অস্ত্রটি হবে ভারতে।

মোদীর এই উদ্বেগ দেখে কংগ্রেস কালই বৈঠকে বসছে। রাফাল নিয়ে আন্দোলন কর্মসূচি চূড়ান্ত করতে।