অসুস্থ হয়ে পড়ায় মেয়েটিকে হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলেন পরিবারের লোক জন। আর তখনই সামনে আসে ১৪ বছরের মেয়েটি তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা। আর তার পরই উঠে আসে আরও কলঙ্কজনক একটি তথ্য। মেয়েটি তার জবানবন্দিতে জানিয়েছে, গত পাঁচ মাস ধরে ধর্ষণ করে আসছিল তার সৎবাবা।

ঘটনাটি ঘটেছে মধ্যপ্রদেশের দেওয়াস জেলায়। পুলিশ জানিয়েছে, বুধবার মেয়েটি বেশ কয়েক বার বমি করে। পরে অচৈতন্য হয়ে পড়ে। তখনই তাকে স্থানীয় সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এর পরই সামনে আসে মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ার খবরটি।

পুলিশ জানিয়েছে, নাবালিকা মেয়েটিকে পাঁচ মাস ধরে ধর্ষণ করেছিল তার সৎবাবা। বিষয়টি নিয়ে মুখ খুললে খুন করে দেওয়ার হুমকিও দিত। হাসপাতালে মেয়েটি অভিযোগ করেছে, বিষয়টি আগেই সে তার মাকে জানিয়েছিল। কিন্তু, তার মা তাতে কর্ণপাত করেনি। 

আরও পড়ুন: কেরলেও ব্ল্যাক ম্যাজিকের থাবা! মৃত একই পরিবারের ৪

নাবালিকা মেয়েটির অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযুক্ত সৎবাবা বিজয় বৈরাগিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে পকসো (প্রোটেকশন অফ চিল্ড্রেন ফ্রম সেক্সুয়াল অফেন্সেস অ্যাক্ট) ধারায় মামলা করা হয়েছে। হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর মেয়েটি কোথায় থাকবে, সে বিষয় জেলা প্রশাসন সিদ্ধান্ত নেবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।