দুধ আর মার্সিডিজ গাড়ির দাম তো আর এক হতে পারে না। তা হলে তাদের ওপর চাপানো পণ্য পরিষেবা কর (জিএসটি)-এর হার এক হবে কী ভাবে?

জিএসটির একটিমাত্র স্তর বা সমহারের দাবি উড়িয়ে দিতে গিয়ে এই যুক্তি দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

খাদ্য ও অত্যাবশ্যকীয়-সহ যাবতীয় পণ্যের ওপর চাপানো জিএসটির কর-হার ১৮ শতাংশে বেঁধে দেওয়ার দাবি জানিয়েছিল কংগ্রেস। যুক্তি ছিল, এতে গরিব ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষের কাঁধে চাপা করের বোঝা কিছুটা হালকা হবে।

রবিবার একটি ওয়েবসাইট ‘স্বরাজ্য’কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, ‘‘সেটা সম্ভব নয়। দুধ আর মার্সিডিজ গাড়ির দাম তো আর এক হতে পারে না। তা হলে তাদের ওপর চাপানো পণ্য পরিষেবা কর (জিএসটি)-এর হার এক হবে কী ভাবে? খাদ্য ও অত্যাবশ্যকীয় অন্তত ১৫০টি পণ্যের ওপর এখন কোনও জিএসটি কর নেই। কোনওটির ওপর রয়েছে ৫ বা ১৮ শতাংশ। জিএসটির ফলে কর কমেছে চাল, গম, চিনি, মশলাপাতি-সহ কম করে ৪০০টি শ্রেণির পণ্যের। কংগ্রেস জিএসটি একটি স্তরের কথা বলছে। তার মানে, যে খাদ্য ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্যাদিতে কোনও জিএসটি কর নেই, কংগ্রেস সেগুলিতেও কর বসাবে।’’

আরও পড়ুন- জিএসটি-র এক বছর: কেন বাড়ি কিনতে গেলে জিএসটি এখন চক্ষুশূল

আরও পড়ুন- জিএসটি বিশ্লেষণে বসে তোপ কেন্দ্রকেই​

প্রধানমন্ত্রীর দাবি, জিএসটিই ১৭ রকমের কর আর ২৩ রকমের সেসকে এক ছাতার তলায় এনে কর-ব্যবস্থার সরলীকরণ করতে পেরেছে। শুধু তাই নয়, পরোক্ষ করের আদায়ের পরিমাণ ৭০ শতাংশ বেড়েছে জিএসটির দৌলতেই।

তবে জিএসটির স্তরগুলির যে আরও সরলীকরণ প্রয়োজন, পরোক্ষে তা কবুল করেছেন প্রধানমন্ত্রী।