সরকারি কর্তাদের বদলি ও দায়িত্ব বণ্টনের ক্ষেত্রে বিশৃঙ্খলা তৈরি হয়েছে ত্রিপুরায়। ৩ অগস্টের এক বদলির নির্দেশে দেখা যাচ্ছে, কমলপুর মহকুমার দায়িত্বে দু’জন মহকুমা শাসক। একই ব্যাচের আধিকারিকরা একই অফিসে বদলি হয়ে একে অপরের সিনিয়র হয়েছেন। সবচেয়ে বেশি বিতর্ক মুখ্যমন্ত্রীর উপদেষ্টাকে প্রশাসনিক দায়িত্ব দেওয়ায়। 

মহাকরণে সচিবদের মধ্যে সমন্বয়ে রাখার কমিটির মাথায় থাকেন মুখ্যসচিব। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লবকুমার দেবের উপদেষ্টা ভাই বিজয় ছিব্বারকে চেয়ারম্যান করে মুখ্যসচিব সঞ্জীব রঞ্জনকে করা হয়েছে ওই কমিটির কো-চেয়ারম্যান। আইনজীবীদের একাংশের বক্তব্য, মুখ্যমন্ত্রীর উপদেষ্টা এই কমিটির চেয়ারম্যান হতে পারেন না। মুখ্যমন্ত্রীর পরামর্শদাতা হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে তাঁকে। ক্যাবিনেট মর্যাদার সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হলেও তিনি প্রশাসনের আধিকারিক নন। সরকারের পরামর্শদাতা হিসেবে বা সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে কোনও কাজ করার এক্তিয়ার তাঁর নেই। এ ক্ষেত্রে মুখ্যসচিবের পদমর্যাদাকে খাটো করেছে সরকার। বিরোধীদের অভিযোগ, বিপ্লব দেবরা নিজস্ব লোক দিয়ে প্রশাসনকে নিয়ন্ত্রণ করছেন। এটা প্রশাসনের দলীয়করণের এক জলজ্যান্ত উদাহরণ।