শিবপাল ও অখিলেশের মধ্যে কোনও ঝামেলাই হয়নি। শুক্রবার নিজের বাসভবনে দু’জনের সঙ্গে আলাদা আলাদা ভাবে বৈঠকের পর এ কথাই জানালেন সমাজবাদী পার্টির সুপ্রিমো মুলায়ম সিংহ যাদব। পাশাপাশি তিনি এটাও জানান, সপা একটা পরিবারের মতো। তিনি থাকতে দলের কোনও ক্ষতি হতে দেবেন না। হয়েছেও তাই। অন্তর্কলহে রাশ টানতে তাই দিল্লি থেকে তিনি নিজে লখনউয়ে উড়ে যান। এক জন সুপ্রিমোর মতোই বিবাদ মেটানোর চেষ্টা করেন। ঘরের বিবাদ বাইরে কেন যাবে তা নিয়ে দলকেই দায়ী করেন। সেই সঙ্গে শিবলালের বিরুদ্ধে যে সমর্থকরা প্রতিবাদ দেখিয়েছিলেন তাঁদেরও ধমক দেন মুলায়ম।   

অন্য দিকে, এক সাংবাদমাধ্যমে অখিলেশ বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী এবং ছেলে হিসাবে আমার দুটো কর্তব্য রয়েছে। দলের সভাপতির প্রতিটি কথাকে সম্মান জানাই। বাবাকে খুশি করতে যা করার তাই করব।”

তিনি আরও জানান, যে বা যাঁরা দলে ভাঙনের চেষ্টা করছে তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করবে দল।  

এ দিন মুলায়মের সঙ্গে বৈঠকের পরই কাকা শিবপাল যাদবের ইস্তফাপত্র ফিরিয়ে দেন অখিলেশ। সামনেই বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে এই অন্তর্কলহ দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে পারে। তাই তড়িঘড়ি দিল্লি থেকে লখনউয়ে পৌঁছে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন মুলায়ম।

অখিলেশের সঙ্গে বৈঠকের পর চারটি প্রস্তাব রাখেন মুলায়ম। প্রথমত, শিবপালই দলের সভাপতি থাকবেন। দ্বিতীয়ত, মন্ত্রিত্ব ফিরিয়ে দেওয়া হবে শিবপালের। তৃতীয়ত, আসন্ন নির্বাচনে কাকে টিকিট দেওয়া হবে, সে বিষয়ে অখিলেশেরও মতামত নেওয়া হবে। চতুর্থত, শিবপাল ঘনিষ্ঠ গায়ত্রী প্রজাপতিকে মন্ত্রিত্ব ফিরিয়ে দেওয়া হবে।

আরও খবর...

শিবপালের ইস্তফায় সন্ধি বাবা-ছেলের