দিন ক্ষণ ঠিক হয়নি এখনও। তবে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত তাঁরা। আগামী তামিলনাড়ুর উপ-নির্বাচনে লড়বেন। প্রার্থী দাঁড় করাবেন ২০টি আসনে। নিজের ৬৪তম জন্মদিনে ঘোষণা করলেন কমল হাসন

বুধবার জন্মদিন উপলক্ষে চেন্নাইতে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন তিনি। সেখানেই দলের পরিকল্পনা নিয়ে কথা বলেন। তিনি জানান, ‘‘উপ-নির্বাচন কবে হবে কেউ জানে না। তবে যখনই হোক না কেন, আমরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে প্রস্তুত। গালভরা প্রতিশ্রুতি দেওয়ায় বিশ্বাসী নই আমি। মানুষ কী চান সেটাই গুরুত্বপূর্ণ। তাই সকলের পরামর্শ নিচ্ছি।’’

নির্বাচন কমিশনের তরফে যদিও তামিলনাড়ু উপ-নির্বাচনের দিন ক্ষণ এখনও ঘোষণা করা হয়নি। তবে, সে দিকেই তাকিয়ে সেখানকার রাজনৈতিক মহল। কারণ এই নির্বাচনেই স্থির হয়ে যাবে, মুখ্যমন্ত্রী ই পলানীস্বামীর নেতৃত্বাধীন এআইএডিএমকে সরকারের ভবিষ্যৎ।

আরও পড়ুন: চিন সীমান্তে সেনাকর্মীদের মিষ্টি খাইয়ে দেওয়ালি উদ্‌যাপন মোদীর​

আরও পড়ুন: জঙ্গি নেতাদের মৃত্যুর ভুয়ো খবর কেন বার বার এ ভাবেই ছড়িয়ে পড়ে?​

২৩৪ আসনের তামিলনাড়ু বিধানসভায় এই মুহূর্তে বিরোধী দল ডিএমকে এবং তাদের শরিকদের মোট আসন সংখ্যা এই মুহূর্তে ৯৭। শাসকদল এআইএডিএমকে-র দখলে রয়েছে ১১৬টি আসন। যার মধ্যে বিদ্রোহী নেতা টিটিভি দিনকরণের ঘনিষ্ঠ হওয়ার অভিযোগে ১৮ জন বিধায়ককে সম্প্রতি বহিষ্কার করতে উদ্যোগী হয়েছিল তারা। তবে গত মাসে তাতে স্থগিতাদেশ দিয়েছে মাদ্রাজ হাইকোর্ট।

এ ছাড়াও দুই বিধায়কের মৃত্যুতে তিরুভার এবং তিরুপরঙ্কুন্দ্রম আসন দু’টিতে উপনির্বাচন প্রয়োজন। ওই দুই কেন্দ্রে বিধায়ক ছিলেন এম করুণানিধি এবং এআইএডিএমকে-র একে বসু। গত অগস্টে দু’জনেরই মৃত্যু হয়েছে।

তামিলনাড়ুকে দুর্নীতিমুক্ত করতেই রাজনীতির মঞ্চে আবির্ভাব অভিনেতা কমল হাসনের। এমনটাই দাবি তাঁর। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে নিজের দল ‘মাক্কল নিধি মাইয়ম’ বা ‘পিপলস জাস্টিস সেন্টার’-এর সূচনা করেন। পলানীস্বামীর নেতৃত্বাধীন এআইএডিএমকে-র কট্টর সমালোচক কমল হাসন। তাঁদের হাত থেকে রাজ্যকে উদ্ধার করে সুশাসন প্রতিষ্ঠাই নাকি তাঁর লক্ষ্য, বরাবর এমন দাবি করে এসেছেন তিনি।