মঙ্গলবার বাড়িতে হানা দিয়ে বাড়িতে তাঁকে পাননি। বুধবার তাই বাড়ির সামনে নোটিস সাঁটিয়ে পি চিদম্বরমকে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে সিবিআই। কিন্তু সেই নোটিসের আইনগত পদ্ধতি নিয়েই প্রশ্ন তুললেন চিদম্বরমের আইনজীবী। কোন আইনের বলে এ ভাবে দু’ঘণ্টার মধ্যে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, তার উল্লেখ নেই বলে দাবি আইনজীবী অর্শদীপ সিংহ খুরানার। সুপ্রিম কোর্ট তাঁর মক্কেলের মামলা শুনতে রাজি হয়েছে, তাই ‘শুনানি পর্যন্ত অপেক্ষা করুন’— বলেছেন খুরানা।

আইএনএক্স মিডিয়ায় বিদেশি বিনিয়োগে অসঙ্গতির অভিযোগে চিদম্বরমের বিরুদ্ধে তদন্তে নেমেছে ইডি এবং সিবিআই। ওই সময় কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী ছিলেন চিদম্বরম। মঙ্গলবার দিল্লি হাইকোর্টে আগাম জামিনের আর্জি খারিজ হওয়ার পর চিদম্বরমের দিল্লির বাড়িতে পৌঁছে যান সিবিআই আধিকারিকরা। বাড়িতে হানা দেন ইডির তদন্তকারীরাও। কিন্তু চিদম্বরম বাড়িতে ছিলেন না।দুই সংস্থার আধিকারিকরা মঙ্গলবার ফিরে গেলেও বুধবার সকালে সিবিআই আধিকারিকরা ফের তাঁর বাড়িতে যান। নোটিস সাঁটিয়ে দিয়ে আসেন বাড়িতে।সেখানে বলা হয়, নোটিস দেখার দু’ঘণ্টার মধ্যে সিবিআই-এ হাজিরা দিতে হবে চিদম্বরমকে।

এই নোটিসের আইনি দিক নিয়েই প্রশ্ন তুলে চিদম্বরমের আইনজীবী খুরানার বক্তব্য, ‘‘কোন ধারায় আমার মক্কেলকে নোটিস দিয়ে দু’ঘণ্টার মধ্যে হাজিরার নির্দেশ দিয়েছেন, তা স্পষ্ট নয়।’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘দিল্লি হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে দ্রুত শুনানির জন্য চিদম্বরমের স্পেশাল লিভ পিটিশন গ্রহণ করেছে সুপ্রিম কোর্ট। শুনানির দিন ধার্য হয়েছে বুধবার সকাল সাড়ে দশটা। তাই আমার আর্জি শুনানি পর্যন্ত আমার মক্কেলের বিরুদ্ধে কোনও কড়া পদক্ষেপ করবেন না। শুনানি পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।’’যদিও সেই শুনানি এখনও হয়নি।

চিদম্বরমের বাড়িতে সাঁটানো সিবিআই-এর নোটিস। 

আরও পডু়ন: কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলিকে ব্যবহার করে চরিত্রহনন চলছে, চিদম্বরমের পাশে দাঁড়িয়ে তোপ রাহুলের

আরও পডু়ন: এখনও স্বস্তির ইঙ্গিত নেই সুপ্রিম কোর্টে, চিদম্বরমের বিরুদ্ধে লুক আউট নোটিস ইডির

চিদম্বরমের বাড়িতে সাঁটানো নোটিসের বয়ান, ‘ফৌজদারি বিধির ১২ নম্বর চ্যাপ্টার অনুযায়ী আমি তদন্ত করছি। কিন্তু মনে হচ্ছে আপনি তদন্ত প্রক্রিয়া এড়িয়ে যেতে চাইছেন। তাই তদন্তের জন্য নোটিস পাওয়ার দু’ঘণ্টার মধ্যে আপনাকে আমাদের সামনে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।’ কিন্তু এ ভাবে দু’ঘণ্টার মধ্যে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ কার্যত নজিরবিহীন বলেই মনে করছেন আইনজ্ঞরা।

অন্য দিকে দিল্লি হাইকোর্ট আগাম জামিনের আর্জি খারিজ করায় গতকালই সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন চিদম্বরম। আজ বুধবার প্রথমে সেই মামলার শুনানি হয় সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এনভি রমানার এজলাসে। কিন্তু তিনি মামলা পাঠিয়ে দেন প্রধান বিচারপতির বেঞ্চে।