ভারত থেকে যাওয়া শিখ তীর্থযাত্রীদের সঙ্গে পাকিস্তান সরকার যে ব্যবহার করছে, তার তীব্র প্রতিবাদ জানাল বিদেশমন্ত্রক।

ইসলামাবাদে ভারতীয় হাইকমিশনের অফিসারদের সঙ্গে ভ্রমণরত শিখ তীর্থযাত্রীদের দেখা করতে দেওয়া হয়নি। একে বিদেশমন্ত্রকের তরফে ‘ব্যাখ্যার অযোগ্য কূটনৈতিক অসৌজন্য’ বলা হয়েছে।

রবিবার বিদেশমন্ত্রকের তরফে এক প্রেস বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘‘অন্য দেশে ভ্রমণরত তীর্থযাত্রীদের সঙ্গে দেশের দূতাবাস বা হাইকমিশনের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলাটার মধ্যে নতুনত্ব কিছু নেই। এটাই প্রথা। এটা দূতাবাস বা হাইকমিশনগুলির প্রোটোকলের মধ্যেই পড়ে। ভ্রমণরতদের চিকিৎসা বা তাঁদের পরিবারের জরুরি প্রয়োজনের জন্য। এর পরেও এ বছর ভ্রমণরত শিখ তীর্থযাত্রীদের সঙ্গে ভারতীয় হাইকমিশনের অফিসারদের দেখা করতে দেওয়া হয়নি। এমনকী, গত ১২ এপ্রিল ওয়াঘা রেল স্টেশনে ওই শিখ তীর্থযাত্রীরা পৌঁছনোর পরেও তাঁদের সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হয়নি হাইকমিশনের প্রতিনিধিদের। পরে গত ১৪ এপ্রিল তীর্থযাত্রীদের সঙ্গে হাইকমিশনের প্রতিনিধিদের রাওয়ালপিন্ডির গুরুদ্বার পাঞ্জা সাহিবেও দেখা করতে দেওয়া হয়নি।’’

আরও পড়ুন- আজীবন নিষিদ্ধ শরিফ, জানিয়ে দিল পাক সুপ্রিম কোর্ট​

আরও পড়ুন- হামলার ছক, ভারতের ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ তালিকায় পাক কূটনীতিক​

বৈশাখী উৎসব উপলক্ষ্যে ১ হাজার ৮০০ জন শিখ তীর্থযাত্রী রাওয়ালপিন্ডির গুরুদ্বার পাঞ্জা সাহিবে গিয়েছেন গত বৃহস্পতিবার। অভিযোগ, তার পর তিন বার তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেছিলেন ইসলামাবাদে ভারতীয় হাইকমিশনের অফিসাররা। কিন্তু পাক সরকারের বাধায় তা সম্ভব হয়নি।

বিদেশমন্ত্রকের বিবৃতিতে এও বলা হয়েছে, ‘‘গত ১৪ এপ্রিল ইভাকুয়ি ট্রাস্ট প্রপার্টি বোর্ডের চেয়ারম্যানের আমন্ত্রণে ইসলামাবাদে ভারতীয় হাইকমিশনার অজয় বিসারিয়ার গুরুদ্বার পাঞ্জা সাহিবে যাওয়ার কথা থাকলেও তাঁকে তড়িঘড়ি সেই সূচি বাতিল করতে বলা হয়।’’