শেষবারের জন্য দেখার আর্তি নিয়ে লাখে লাখে মানুষ নেমে পড়েছেন রাজধানীর পথে। সকালে কৃষ্ণ মেনন মার্গে বাজপেয়ীর বাসভবন থেকে বিজেপির সদর দফতর। অটলবিহারী বাজপেয়ীকে শ্রদ্ধা জানাতে নতমুখে লম্বা লাইন। সেই ভিড়ে রাজনৈতিক দল, সম্প্রদায় উঁচুনিচুর ভেদাভেদ মুছে গিয়েছে। সেই ভিড়ই জননেতা অটলবিহারী বাজপেয়ীর জনপ্রিয়তার সাক্ষ্য দিয়েছে।

শোকযাত্রা তত্ত্বাবধানের দায়িত্বে আছেন তিন সেনাবাহিনীর জওয়ানেরা। দিল্লির প্রায় পঁচিশটি রাস্তায় যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে, যাতে অন্তিম যাত্রায় কোনও বিভ্রাট না ঘটে। সেনা জওয়ানদের পাশাপাশি রাজধানীতে মোতায়েন করা হয়েছে দিল্লি পুলিশের দুই হাজার কর্মীকে।

বৃহস্পতিবার রাতে তাঁর মরদেহ রাখা ছিল কৃষ্ণ মেনন মার্গের বাসভবনে। সেখান থেকে আজ সকালে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় ছয় কিলোমিটার দূরে দীনদয়াল উপাধ্যায় মার্গে বিজেপির নবনির্মিত সদর দফতরে। দীর্ঘদিন ভারতীয় জনতা পার্টির রাশ তাঁর হাতে থাকলেও এই নতুন অফিস থেকে তিনি কখনও দল পরিচালনা করেননি। নতুন অফিসে তাঁকে শ্রদ্ধা জানাতে মানুষের ঢল নামে। প্রয়াত নেতাকে দলীয় সদর দফতরে শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শ্রদ্ধা জানান লালকৃষ্ণ আডবাণী, বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ, রাজনাথ সিংহ, অনন্তকুমার, সুরেশ প্রভু, যোগী আদিত্যনাথ, শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে সহ বিজেপি শীর্ষনেতারা।

 

 

বিরোধী রাজনাতিক দলের প্রতিনিধিরাও হাজির হন দলমত নির্বিশেষে। বাংলাদেশ, নেপাল সহ বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিরাও রাজধানীতে তাঁকে শ্রদ্ধা জানাতে হাজির হয়েছেন। শেষকৃত্যে থাকবেন ভূটানের রাজাও।

আরও পড়ুন: ভারত রত্নহীন, চলে গেলেন অটলবিহারী বাজপেয়ী

আরও পড়ুন: শ্রীঅটলবিহারী বাজপেয়ী (১৯২৪-২০১৮)​

অটলবিহারী বাজপেয়ীর প্রয়াণে সাত দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করেছে ভারত সরকার। সারা দেশে অর্ধনমিত রাখা হয়েছে জাতীয় পতাকা।দুপুর ২টো পর্যন্ত বিজেপি সদর কার্যালয়েই তাঁর মরদেহ শায়িত রাখা হয়। বিকেল পাঁচটায় সেনাবাহিনীর উপস্থিতিতে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে স্মৃতিস্থলে। রাজঘাটের কাছে তাঁর সমাধিস্থলে একটি স্মৃতিস্মারকও তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছে কেন্দ্র সরকার।

আরও পড়ুন: ওঁর স্মিত হাসিই চিরদিনের স্মৃতি হয়ে রয়ে যাবে: আডবাণী

শোক পালন করতে আজ বিভিন্ন রাজ্য সরকারও ছুটি ঘোষণা করেছে। পশ্চিমবঙ্গে আজ অর্ধদিবস ছুটি।  পশ্চিমবঙ্গ ছাড়া আরও বেশ কয়েকটি রাজ্যও ছুটি ঘোষণা করেছে। পূর্ণদিবস ছুটি ঘোষণা করেছে কর্নাটক, তামিলনাড়ু, পঞ্জাব, উত্তরপ্রদেশ, ছত্তিসগঢ়, হরিয়ানা, ঝাড়খণ্ড, বিহার সহ বেশ কয়েকটি রাজ্য।

 

(দেশজোড়া ঘটনার বাছাই করা সেরা বাংলা খবর পেতে পড়ুন আমাদের দেশ বিভাগ।)