ভারতে ‘জনবিস্ফোরণ’ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। গতকাল, স্বাধীনতা দিবসের বক্তৃতায় তিনি বলেন, ‘‘পরিবার পরিকল্পনা দেশপ্রেমেরই অঙ্গ।’’ এ নিয়ে পদক্ষেপ করতে রাজ্যগুলিকে অনুরোধ করেছেন তিনি। জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানকে সমর্থন জানিয়েছেন কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতা পি চিদম্বরমও। 

যদিও ২০১৮-১৯ সালের আর্থিক সমীক্ষার ফল অন্য কথা বলছে। সেই তথ্য অনুযায়ী, আগামী দু’দশকে ভারতে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার দ্রুত কমবে। বরং ২০৩০-এর মধ্যে কিছু রাজ্যে বৃদ্ধের স‌ংখ্যা বাড়বে। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য অবশ্য উল্টো। মোদীর কথায়, ‘‘দেশের কিছু সমস্যা সরাসরি মোকাবিলা করার সময় এসেছে। প্রত্যেকের উচিত পরিবারের সদস্য সংখ্যা কম রাখা। যদি প্রত্যেকের জন্য শিক্ষা-স্বাস্থ্য পরিষেবা সুনিশ্চিত করা না যায়, তবে বাড়ি বা দেশ সুখী হতে পারে না।’’ জনসংখ্যা বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণে কড়া পদক্ষেপের পক্ষে বিজেপির অনেক নেতাই। বিষয়টি নিয়ে সরব আরএসএস। কিন্তু এ নিয়ে এই প্রথম সরাসরি মুখ খুললেন খোদ প্রধানমন্ত্রী। তাঁর কটাক্ষ, ‘‘অনেকে রাজনৈতিক লাভ-ক্ষতির অঙ্কে বিষয়টি বিচার করেন। তাতে আগামী প্রজন্মের সমস্যা বাড়বে।’’