শিখ-পুলিশ সংঘর্ষকে কেন্দ্র করে কয়েক দিন ধরেই উত্তেজনা ছড়িয়েছিল জম্মুর বিভিন্ন এলাকায়। আর গত কাল রাতে যোগেন্দ্র পাল নামে এক কনস্টেবলকে ছুরিবিদ্ধ করার ঘটনায় ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠল জম্মু।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, যোগেন্দ্র পাল নামে ওই কনস্টেবল কাঠুয়া জেলার মিরপুরের বাসিন্দা। বর্তমানে জম্মু (পূর্ব)-এর ডিএসপি মহম্মদ রফিকের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা অফিসার হিসেবে কর্মরত। গত রাতে জম্মু-পাঠানকোট সড়কের দিগিয়ানা এলাকায় কয়েক জন শিখ যখন বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন, সে সময়ই কেউ যোগেন্দ্রকে ছুরিবিদ্ধ করে। এক পুলিশ অফিসার জানিয়েছেন, যোগেন্দ্রকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাঁর অবস্থার উন্নতি হয়েছে। পুলিশ আরও জানিয়েছে, ওই কনস্টেবলকে ছুরিবিদ্ধ করার সঙ্গে সঙ্গে উত্তেজিত জনতার মধ্যে থেকে কেউ তাঁর একে-৪৭ রাইফেল নিয়ে পালিয়ে যায়। যদিও আজ দুপুরে সেই রাইফেলটি উদ্ধার করা গিয়েছে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে। দোষীদের দ্রুত গ্রেফতার করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে তারা।

গত কয়েক দিনে এই নিয়ে দ্বিতীয় বার পুলিশকে ছুরি মারার ঘটনা ঘটল। বুধবার বিকেলে জম্মুর গাড্ডিগড়ে অরুণ শর্মা নামে এক সাব-ইনস্পেক্টরকে ছুরিবিদ্ধ করে এক শিখ যুবক। বর্তমানে অরুণ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

দিন কয়েক আগে জম্মু বিমানবন্দরের কাছে খলিস্তানি জঙ্গি নেতা জার্নেল সিংহ ভিন্দ্রানওয়ালের একটি পোস্টার টাঙানো হয়েছিল। পুলিশ সেই পোস্টারটি খুলে ফেলে। সেই থেকেই অশান্তির সূত্রপাত। গত কাল পুলিশ-শিখ সংঘর্ষে জগজিৎ সিংহ নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়। জখম হন তিন পুলিশ-সহ সাত জন। এই ঘটনার ফলে আজ জম্মুর সিনিয়র পুলিশ সুপার উত্তম চন্দকে বদলি করে দিয়েছে রাজ্য সরকার।

জম্মুর ডেপুটি কমিশনার সিমরনদীপ সিংহ আজ জানিয়েছেন, গত রাতের ঘটনার পর জম্মু জুড়ে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। উপ-মুখ্যমন্ত্রী নির্মল সিংহ জানিয়েছেন, গত কালের ঘটনার তদন্ত করা হবে। দোষীদের প্রকৃত সাজা দেওয়া হবে। আজ পুঞ্চ, কাঠুয়া, রাজৌরি-সহ বেশ কিছু এলাকায় পুলিশ ও সরকারের বিরুদ্ধে স্লোগান দেয় উত্তেজিত জনতা। দিনভর জম্মুর ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলি বন্ধ ছিল। মোবাইল ও ইন্টারনেট পরিষেবাও বন্ধ রাখা হয়। বন্ধ ছিল বহু স্কুল এবং কলেজও।