অলওয়ার গণধর্ষণ মামলায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে শনিবার কোর্টে চার্জশিট পেশ করল রাজস্থান পুলিশ। গত ২৬ মে অলওয়ারে স্বামীর সঙ্গে মোটরবাইকে চেপে যাচ্ছিলেন নির্যাতিতা তরুণী। অভিযোগ, স্বামীকে মারধর করে তাঁকে গণধর্ষণ করে পাঁচ যুবক। সেই ঘটনার ভিডিয়ো তুলে পরে টাকা চাওয়া হয়। টাকা দিতে না পারায় সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল করে দেওয়া হয় সেই ভিডিয়ো। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভের আঁচ আরও বাড়ে যখন নির্যাতিতা বলেন, ভোটের কাজে ব্যস্ততা দেখিয়ে পুলিশ প্রথমে তাঁদের অভিযোগ নিতে অস্বীকার করেছিল। এই ঘটনায় পুলিশের পাশাপাশি রাজস্থানের কংগ্রেস সরকারের বিরুদ্ধেও গাফিলতির অভিযোগ ওঠে। পরে অবশ্য এফআরআই নথিভুক্ত করে পাঁচ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুরো ঘটনাটি যে ভিডিয়ো করেছিল, গ্রেফতার করা হয়েছে তাকেও।

অন্য দিকে তিন নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়েছে রাজস্থানে। পুলিশ জানিয়েছে, অলওয়ারে ১৫ বছরের এক নাবালিকাকে গণধর্ষণের ঘটনায় নাম জড়াল তিন নাবালকের। গণপিটুনির চোটে রাহুল নামে এক অভিযুক্তের মৃত্যু হয়েছে। অভিযোগ, কয়েক দিন আগে দেবনাথ গ্রামে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে এসে ওই নাবালিকাকে ধর্ষণ করে রাহুল ও তার দুই বন্ধু। মেয়েটির পরিবার সে কথা জানতে পেরে তিন জনকে মারধর শুরু করে। বাকি দু’জন পালিয়ে গেলেও মারের চোটে মৃত্যু হয় রাহুলের। পালিয়ে যাওয়া দুই কিশোরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধর্ষণ ও খুনের দু’টি পৃথক মামলা রুজু হয়েছে।

দ্বিতীয় ঘটনাটি ঘটেছে চুরুতে। একটি ৬ বছরের শিশুকে ধর্ষণে তারই এক আত্মীয়ের নাম জড়িয়েছে। এখানেও অভিযুক্ত নাবালক। তৃতীয় ঘটনাটি ঢোলপুরের খুর্দ গ্রামের। প্রতিবেশী এক যুবক এক কিশোরীর বাড়িতে ঢুকে তাকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ।