চেয়ারে ধুলো! চেয়ার বসার অযোগ্য! তাই আদালতে আজ আড়াই ঘণ্টা দাঁড়িয়ে রইলেন মালেগাঁও বিস্ফোরণ-কাণ্ডের অন্যতম অভিযুক্ত তথা বিজেপি সাংসদ সাধ্বী প্রজ্ঞা। তাঁর অভিযোগ, ওই চেয়ারটিতে তো বটেই, গোটা আদালত কক্ষটি অপরিষ্কার। এনআইএ-র বিশেষ আদালতে প্রজ্ঞা আজ দাবি করেন, ২০০৮-এ মালেগাঁওয়ে বিস্ফোরণ হয়েছিল কি না, সেই বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না।

বেলা পৌনে ১টা নাগাদ প্রজ্ঞা আদালতে প্রবেশ করেন। প্রথমে বিশেষ বিচারক তাঁকে অভিযুক্তদের বসার জায়গায় বসতে বলেন। সেখানে কাঠের বেঞ্চে প্রজ্ঞার সমর্থকেরা লাল কাপড় বিছিয়ে দেন। পরে তাঁকে সাক্ষী কাঠগড়ায় ডাকেন বিচারক এবং জানতে চান, প্রজ্ঞা চেয়ারে বসবেন কি না। প্রজ্ঞা জানান, দাঁড়িয়ে থাকবেন। 

১৫ মিনিটের বিরতির পরে ফের শুনানি শুরু হলে বিচারক আবার প্রজ্ঞাকে বলেন, ‘‘মানবিক কারণেই জানতে চাইছি, বসবেন, নাকি দাঁড়াবেন।’’ প্রজ্ঞা জানান, তাঁর গলায় সংক্রমণ হয়েছিল। তাই শুনতে অসুবিধা হয়। বিচারক তখন একটি চেয়ারের বন্দোবস্ত করেন। কিন্তু একটি বারের জন্যও সেটিতে বসেননি প্রজ্ঞা।

শুনানির পরে ক্ষুব্ধ বিজেপি সাংসদ বলেন, ‘‘এটা একটা চেয়ার! ওই চেয়ারে বসলে শয্যাশায়ী হয়ে পড়তাম। শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত বসার জায়গা দিন। পরে ফাঁসি দিয়ে দেবেন।’’ আদালত কক্ষের পরিচ্ছন্নতা নিয়ে ক্ষোভ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‘এখানে শ্বাস নেওয়ার জায়গা নেই...। যেখানে হাত দিচ্ছি, সেখানেই ধুলো। আমার অ্যালার্জি আছে। এখানে কি কেউ ঝাড়ুও দেয় না!’’ বিচারক জানতে চান, প্রজ্ঞা কি জানেন, মালেগাঁওয়ে বিস্ফোরণ হয়েছিল কি না? বিজেপি সাংসদের উত্তর, ‘‘কিছু জানি না।’’ সেই সময় গেরুয়া রুমাল দিয়ে মুখ মুছতেও দেখা যায় তাঁকে।