উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা ভোটকে ‘পাখির চোখ’ করছেন প্রিয়ঙ্কা গাঁধী বঢরা। সূত্রের খবর, দলীয় সংগঠনকে শক্তিশালী করতে হিন্দি বলয়ের বড় রাজ্যে তিনি নিয়মিত যাবেন ও সপ্তাহে অন্তত দু’বার কর্মীদের সঙ্গে দেখা করবেন।

কংগ্রেস সূত্রের খবর, দলের সভাপতি রাহুল গাঁধীর ১২ তুঘলক লেনের বাংলোয় নিয়ম করে দলীয় কর্মীদের সঙ্গে দেখা করবেন পূর্ব উত্তরপ্রদেশের ভারপ্রাপ্ত এআইসিসির সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা। তিনি শীঘ্রই তা শুরু করবেন। লোকসভা ভোটে উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেসের শোচনীয় ফল হয়েছে। রায়বরেলীতে সনিয়া গাঁধী ছাড়া কেউই জেতেননি। অমেঠীতেও হেরেছেন রাহুল। এই পরিস্থিতিতে সংগঠন মজবুত করার দিকেই নজর দিচ্ছে কংগ্রেস। কংগ্রেসের এক নেতা বলেন, ‘‘ভোটের ফল পর্যালোচনার পরেই ঠিক হয় নেতৃত্বের সঙ্গে কর্মীদের
যোগাযোগ বাড়াতে হবে। সে সময়ই বলা হয়, প্রিয়ঙ্কা সপ্তাহে দু’বার কর্মীদের সঙ্গে দেখা করবেন ও অদূর ভবিষ্যতে আরও বেশি করে উত্তরপ্রদেশে যাবেন।’’ গত বুধবার রায়বরেলী যান প্রিয়ঙ্কা। সেখানে তিনি জানান, কোন কোন কর্মী ভোটের সময় দলের হয়ে ঠিক মতো কাজ করেননি তা তিনি খুঁজে বার করবেন।

রাহুলের সরকারি বাংলোয় কর্মীদের সঙ্গে প্রিয়ঙ্কার দেখা করার সিদ্ধান্ত নিয়েও কংগ্রেসের অন্দরে চর্চা চলছে। দলের একাংশের প্রশ্ন, নিজের বাড়িতে বা কংগ্রেস সদর দফতরে বৈঠক না করে তিনি কেন রাহুলের বাড়িতে বৈঠকের সিদ্ধান্ত নিলেন। ওই অংশের আশঙ্কা, বিজেপি বরাবরই কংগ্রেসের বিরুদ্ধে পরিবারতন্ত্রের অভিযোগ তোলে। এ বার হয়তো প্রিয়ঙ্কার ওই সিদ্ধান্তকে ‘অস্ত্র’ করে বিজেপি পরিবারতন্ত্রের অভিযোগকে আরও জোরদার করবে। উত্তরপ্রদেশে ১১ বিধায়ক এ বার সাংসদ হিসেবে নির্বাচিত হন। ওই আসনগুলিতে উপনির্বাচন হবে। কংগ্রেস সূত্রের খবর, প্রকাশ্যে না বললেও ওই সেগুলিকেও যথেষ্টই গুরুত্ব দিচ্ছেন দলীয় নেতৃত্ব।