গলি থেকে রাজপথ, যাত্রা সহজ ছিল না। কিন্তু করে দেখালেন মেজর খুশবু কাঁওয়ার। শনিবার প্রজাতন্ত্র দিবসে দিল্লির রাজপথে তাঁর হাত ধরে গড়ে উঠল ইতিহাস। এ বছর প্রজাতন্ত্র দিবসের থিম ছিল নারীশক্তির উত্থান। সেই উপলক্ষে প্রথমবার রাজধানীতে কুচকাওয়াজে অংশ নেন দেশের প্রাচীনতম আধা সামরিক বাহিনী, অসম রাইফেলসের মহিলারা। সেই দলের কমান্ডার ছিলেন মেজর খুশবু। কুচকাওয়াজে সকলকে নেতৃত্ব দিয়ে এগিয়ে নিয়ে যান তিনি।

৩০ বছরের খুশবু কাঁওয়ার আদতে রাজস্থানের জয়পুরের বাসিন্দা। বিবাহিতা এবং এক সন্তানের মা। পিতা ছিলেন বাস কন্ডাক্টর। কষ্ট করে লেখাপড়া শেখেন তিনি। ২০১২ সালে যোগ দেন ভারতীয় সেনাবাহিনীতে। এই মুহূর্তে অসম রাইফেলসে রয়েছেন। উত্তর-পূর্বের রাজ্যে বিদ্রোহ দমন করা, ইন্দো মায়ানমার সীমান্তে চেকপোস্ট পাহারা দেওয়া, বেআইনি অস্ত্রশস্ত্রের খোঁজে তল্লাশি চালানো ইত্যাদি তাঁর দায়িত্বের মধ্যে পড়ে।

কুচকাওয়াজ শেষ হলে সংবাদসংস্থা পিটিআইকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে খুশবু কাঁওয়ার বলেন, ‘‘এই প্রথমবার কুচকাওয়াজে সামিল হল অসম রাইফেলস। তাদের মহিলা বাহিনীকে নেতৃত্ব দিতে পেরে গর্ব বোধ করছি। আমি রাজস্থানের এক বাস কন্ডাক্টরের মেয়ে। জীবনে প্রচুর পরিশ্রম করেছি। আমি যদি এতদূর পৌঁছতে পারি,এ দেশের যে কোনও মেয়ের পক্ষেই স্বপ্নপূরণ সম্ভব।’’

খুশবু কাঁওয়ারের সাক্ষাত্কার।

আরও পড়ুন: প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেডে এই প্রথম হাজির নেতাজির চার সেনানী​

আরও পড়ুন: নারী শক্তিই প্রতীক হয়ে উঠল দিল্লির রাজপথে প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে​

রাজপথে কুচকাওয়াজের জন্য গত পাঁচ মাস ধরে দিনে ৭-৮ ঘণ্টা অনুশীলন করতে হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।