কাশ্মীরে অধিকাংশ এলাকাতেই আজ নিষেধাজ্ঞা তুলে নিল প্রশাসন। 

গত কাল রাষ্ট্রপুঞ্জের সামরিক পর্যবেক্ষকদের অফিস পর্যন্ত মিছিলের ডাক দিয়েছিলেন বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতৃত্ব। তার জেরে ফের শ্রীনগরে কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি হয়। প্রশাসন জানিয়েছে, অধিকাংশ এলাকাতেই আজ রাস্তা থেকে ব্যারিকেড সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ফলে যাতায়াত করতে পারছেন মানুষ। তবে কাঁটাতারের বেড়া এখনও রয়েছে। প্রশাসনের দাবি, শুক্রবারের নমাজ ও মিছিলের ডাক সত্ত্বেও গত কাল বিশেষ গোলমাল হয়নি। ফলে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে মুখ খুলেছেন পিডিপি নেত্রী মেহবুবা মুফতির মেয়ে ইলতিজা। প্রায় ১৬ দিন কাশ্মীরে আটক ছিলেন তিনিও। ইলতিজার বক্তব্য, ‘‘এই পরিস্থিতিতে সত্য জানাটাই সবচেয়ে কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। মনে হচ্ছে আমাদের জীবন অনেকটা জর্জ অরওয়েলের ১৯৮৪ উপন্যাসের মতো হয়ে গিয়েছে।’’ ওই উপন্যাসে ব্যক্তির উপরে রাষ্ট্রের নজরদারির বাড়াবাড়ির কথা তুলে ধরেছিলেন অরওয়েল।

প্রশাসনিক আধিকারিকেরা জানিয়েছেন, আজ রাস্তাঘাটে গাড়ির সংখ্যা বেড়েছে। অফিসেও বেড়েছে হাজিরার সংখ্যা। তবে এ দিনও বন্ধ বাজার-দোকানপাট। বাটামালু ও লাল চকে কয়েক জন ব্যবসায়ী রাস্তায় দোকান খুলেছিলেন বলে দাবি আধিকারিকদের।
অন্য দিকে এ দিন সুপ্রিম কোর্টে পেশ করা আর্জিতে জম্মু-কাশ্মীরে নিষেধাজ্ঞাকে সমর্থন করেছে প্রেস কাউন্সিল অব ইন্ডিয়া। হতে চেয়ে আর্জি জানিয়েছে প্রেস কাউন্সিল। আর্জিতে জানানো হয়েছে, নিরাপত্তার কারণে সংবাদমাধ্যমের উপরে কিছু নিষেধাজ্ঞা জারি হতেই পারে।