• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

প্রার্থীদের খরচের সীমা বাড়ল ভোটে

Bihar Election
প্রতীকী ছবি।

প্রথমে বিহার, তার পরে আগামী বছর পশ্চিমবঙ্গের মতো রাজ্যে বিধানসভা ভোটে প্রার্থীদের নির্বাচনী খরচের ঊর্ধ্বসীমা বেড়ে গেল।আজ কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রক সরকারি বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানিয়েছেন, বিহার-পশ্চিমবঙ্গের মতো রাজ্যে প্রতিটি বিধানসভা কেন্দ্রে এক এক জন প্রার্থী ৩০.৮০ লক্ষ টাকা খরচ করতে পারবেন। এতদিন এই রাজ্যগুলিতে বিধানসভা কেন্দ্র পিছু এক জন প্রার্থী ২৮ লক্ষ টাকা খরচ করতে পারতেন।

মূলত করোনা অতিমারির কারণেই ভার্চুয়াল প্রচারের খরচ বেড়ে যাবে আঁচ করে নির্বাচন কমিশন প্রার্থীদের নির্বাচনী খরচের ঊর্ধ্বসীমা বাড়ানো নিয়ে আলোচনা শুরু করেছিল। আইন মন্ত্রকের সঙ্গে আলোচনা হয়। তার ভিত্তিতেই আইন মন্ত্রক আজ নির্বাচন পরিচালনা সংশোধনী বিধি জারি করেছে।  

বিধানসভা ভোটের সঙ্গে লোকসভা নির্বাচনের জন্যও একই ভাবে খরচের ঊর্ধ্বসীমা বাড়ানো হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে লোকসভা কেন্দ্র পিছু এক এক জন প্রার্থী এতদিন ৭০ লক্ষ টাকা খরচ করতে পারতেন। তা বেড়ে ৭৭ লক্ষ টাকা করা হয়েছে। অরুণাচল প্রদেশ, গোয়া, সিকিম, দিল্লি বাদে ছ’টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে লোকসভা ভোটে খরচের ঊর্ধ্বসীমা ছিল ৫৪ লক্ষ টাকা। তা বেড়ে ৫৯.৪০ লক্ষ টাকা হয়েছে। বিধানসভা ভোটে অরুণাচল, গোয়া, মণিপুর, মেঘালয়, মিজোরাম, নাগাল্যান্ড, সিকিম, ত্রিপুরা, আর পুদুচেরিতে খরচের ঊর্ধ্বসীমা ২০ লক্ষ টাকা থেকে বেড়ে ২২ লক্ষ টাকা হচ্ছে। বাকি রাজ্যগুলিতে খরচ ২৮ লক্ষ টাকা থেকে বেড়ে ৩০.৮০ লক্ষ টাকা হচ্ছে।

সরকারি সূত্রের ব্যাখ্যা, সভা-সমিতি আয়োজন, গাড়ি, প্রচারে ব্যবহৃত সামগ্রী, বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে বিজ্ঞাপনের খরচের সঙ্গে ভার্চুয়াল প্রচারের খরচ ও স্বাস্থ্যবিধি মানার শর্তও যোগ হবে। বিহারের বিধানসভা ভোটের সঙ্গে বিভিন্ন রাজ্যে লোকসভা ও বিধানসভার উপনির্বাচনও হচ্ছে। সেখানেও প্রার্থীরা বাড়তি খরচ করতে পারবেন। রাজনৈতিক দলের নেতারা অবশ্য ঘরোয়া আলোচনায় বলছেন, কমিশনের খরচের ঊর্ধ্বসীমা বাঁধা থাকলেও বাস্তবে তার থেকে অনেক বেশিই খরচ হয়। বিশেষত অধিকাংশ ক্ষেত্রেই প্রার্থীর প্রচারের খরচকে দলের খরচের মধ্যে যোগ করা হয়। কারণ সেখানে কোনও ঊর্ধ্বসীমা বেঁধে দেওয়া নেই।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন