প্রকল্প বনাম জমি— পশ্চিমবঙ্গ নিয়ে ফের বিতর্ক সংসদে। রেলের নতুন প্রকল্পই হোক বা সড়ক, পশ্চিমবঙ্গের প্রসঙ্গ এলেই জমি অধিগ্রহণের কাটা রেকর্ড বাজায় কেন্দ্র— এই মর্মে আজ সরব হলেন তৃণমূলের লোকসভার নেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। বিষয়টি নিয়ে লোকসভার অধিবেশন কক্ষেই তাঁর কথা হয় সড়ক পরিবহন মন্ত্রী নিতিন গড়কড়ির।

সংশ্লিষ্ট মন্ত্রকের বাজেট বরাদ্দ নিয়ে জবাবি বক্তৃতায় নিতিন আজ পশ্চিমবঙ্গে হাইওয়ে করার সমস্যা প্রসঙ্গে জমি অধিগ্রহণের কথা তোলেন। পাশাপাশি গোটা দেশজুড়ে বিভিন্ন প্রকল্প রূপায়নের আশ্বাসও দেন মন্ত্রী। তাঁর বক্তৃতার পর উঠে দাঁড়িয়ে সুদীপবাবু বলেন, ‘‘আপনি স্বপ্নের সওদাগর। আজ যা আশ্বাস দিলেন তার দিকে অবশ্যই আমরা নজর রাখব। সংসদের অ্যাসিওরেন্স কমিটিতে এই আশ্বাস
নথিভুক্তও হয়ে থাকল। কিন্তু আপনাকে এটাই বলতে চাই যে স্বাধীনতার পর সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পূর্ব-ভারতের রাজ্যগুলি। মহারাষ্ট্র বা গুজরাতের সঙ্গে অনেক তফাৎ হয়ে গিয়েছে পশ্চিমবঙ্গের। সেই সঙ্গে বিহার ও ওড়িশারও। আপনি পূর্বাঞ্চলকে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে দেখুন।’’

সুদীপবাবু এ-ও বলেন, ‘‘বারবার জমি অধিগ্রহণ নিয়ে অভিযোগ ওঠে বলে বলতে বাধ্য হচ্ছি যে, আমাদের সরকারের নীতি, কোনও কৃষকের কাছ থেকে জোর করে জমি নেওয়া চলবে না। জমি নিতে হলে কৃষকদের উপযুক্ত অর্থ এবং অন্যান্য সামাজিক সুরক্ষার ব্যবস্থা করে দিতে হবে। আমি আপনাকে অনুরোধ করছি অধিগ্রহণের ক্ষেত্রে কৃষকদের পাশে দাঁড়ান। আর্থিক সহায়তা করুক কেন্দ্র।’’