রাম জন্মভূমি-বাবরি মসজিদ মামলার শুনানি আগামিকাল শেষ হবে। আজ শুনানির সময়ে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ বলেন, ‘‘আজ ৩৯তম দিন। আগামিকালই শুনানি শেষ হবে।’’ আজ মামলার অন্যতম পক্ষ মহন্ত সুরেশ দাসের আইনজীবীদের সঙ্গে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের আইনজীবীর তীব্র বাদানুবাদ হয়।

প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ গত কাল জানিয়েছিল, আগামী শুক্রবারের মধ্যে অযোধ্যা জমি বিতর্ক মামলার শুনানি শেষ করতে হবে। আজ দু’পক্ষের আইনজীবীদের মধ্যে বাদানুবাদের সূত্রপাত মহন্ত সুরেশ দাসের আইনজীবী কে পরাশরণের সওয়ালকে কেন্দ্র করে। তিনি বলেন, ‘‘সম্রাট বাবর ভারত জয়ের পর রামের জন্মস্থানে মসজিদ নির্মাণ করে ঐতিহাসিক ভুল করেছিলেন। এখন ওই ভুল সংশোধনের প্রয়োজন।’’ তাঁর বক্তব্যের বিরোধিতা করেন সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের আইনজীবী রাজীব ধবন। তিনি বলেন, ‘‘এটা নতুন যুক্তি। অন্য মামলাগুলিতেও এই বিষয়টি ওঁরা বলতে পারতেন। এর জবাব দেওয়ার অধিকার আমার রয়েছে।’’ পরাশরণের সহযোগী আইনজীবী সি এস বৈদ্যনাথন আপত্তি জানান যে বার বার বিরোধী পক্ষ থেকে তাঁদের বাধা দেওয়া হচ্ছে। পরে অবশ্য আদালত জানায়, ধবনকে বক্তব্য পেশের সুযোগ দেওয়া হবে।

পরে সওয়াল করতে উঠে ধবনের সঙ্গে ফের বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন বৈদ্যনাথন। এক সময় রীতিমতো গলা চড়িয়ে তিনি বলেন, ‘‘এ সব কী হচ্ছে। কেউ যদি ধারাভাষ্য দিতে থাকেন, তা হলে আমি সওয়াল চালিয়ে যেতে পারব না।’’ এর পরেই প্রায় চিৎকার করেই বৈদ্যনাথনের উদ্দেশে ধবন বলেন, ‘‘আপনি চুপ করুন।’’ আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বৈদ্যনাথন বলেন, ‘‘উনি (ধবন) আমাকে চুপ করতে বলছেন, এটা কী বলতে পারেন?’’

পরিস্থিতি সামাল দেন প্রধান বিচারপতি। তিনি বলেন, ‘‘বিঘ্ন ঘটছে...। আপনাকে (বৈদ্যনাথন) দেখে উত্তেজিত মনে হচ্ছে।’’ পরে বৈদ্যনাথন জানান, মুসলিম পক্ষ অ্যাডভার্স পজেশনের সুযোগ নিতে চাইছে। বেঞ্চ জানিয়েছে, আগামিকাল মামলার শুনানি পর্ব তারা শেষ করতে চায়। বৈদ্যনাথনের বক্তব্য শেষ করার জন্য আগামিকাল ৪৫ মিনিট সময় ধার্য করেছে আদালত।