স্বাস্থ্য সূচকের পতন রোধে সারা বিশ্বেই এখন রোগ প্রতিরোধের উপরে জোর দেওয়া হচ্ছে। তা বলে কি হৃৎপিণ্ড কতটা বিপজ্জনক অবস্থায় রয়েছে, তার হদিসও আগাম পাওয়া সম্ভব! হায়দরাবাদে রোগীর নিরাপত্তা সংক্রান্ত দু’দিনের আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য সম্মেলনের মঞ্চ বলছে, সম্ভব। আজ অ্যাপোলো গ্লেনেগ্‌লস এবং মাইক্রোসফটের যৌথ প্রচেষ্টায় সেই সম্ভাবনার উপর থেকে পর্দা উঠল।

২০১০ সাল থেকে সাত বছরের পরিসংখ্যানে দু’লক্ষেরও বেশি রোগীর উপরে পরীক্ষা চালিয়ে সংস্থার দাবি, আগামী পাঁচ-সাত বছরে কারও হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হ‌ওয়ার সম্ভাবনা কতখানি, তা বলা সম্ভব। ৮৭ শতাংশ ক্ষেত্রে এই পরীক্ষা সফল হয়েছে বলে সম্মেলন-মঞ্চে দাবি করা হয়েছে। অ্যাপোলোর জয়েন্ট ম্যানেজিং ডিরেক্টর সঙ্গীতা রেড্ডির দাবি, গ্রামাঞ্চলে স্বাস্থ্য পরিষেবা উন্নত করতে এই প্রযুক্তি কাজে আসবে।

অ্যাপোলো-কর্তৃপক্ষ জানান, প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে রক্তপরীক্ষার রিপোর্ট, রক্তচাপ, হৃৎস্পন্দন-সহ স্বাস্থ্যের বিভিন্ন মাপকাঠি বিশ্লেষণ করে শতাংশের হিসেবে একটি নম্বর দেওয়া হবে। আগামী পাঁচ-সাত বছরে কার‌ বিপদ কতটা বৃদ্ধি পেতে পারে, তার বিশ্লেষণ করবে মাইক্রোসফটের প্রযুক্তি। প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত চিকিৎসক জে শিবকুমার বলেন, “এখন পাঁচ-সাত বছরের‌ই আগাম আভাস দেওয়া সম্ভব।”

সেই পথে অ্যাপ-নির্ভর অন্য একটি পরিষেবা চালু করেছেন বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তার নাম ‘অ্যাপোলো প্রো-হেল্‌থ’। সংস্থার চেয়ারম্যান প্রতাপ রেড্ডি আজ সেই পরিষেবার সূচনা করেন।