‘তিন তালাক’ প্রথা মুসলিম নারীদের অধিকার খর্ব করে। তাই এই প্রথা অসাংবিধানিক। বৃহস্পতিবার এই রায় দিল ইলাহাবাদ হাইকোর্ট। একই সঙ্গে হাইকোর্টে জানিয়ে দিল, কোনও পার্সোনাল ল বোর্ডই সংবিধানের ঊর্ধ্বে নয়।

মুসলিমদের বিবাহ বিচ্ছেদের এই পদ্ধতি নিয়ে বিতর্ক বহু দিনের। এত দিন পর্যন্ত বিবাহ-বিচ্ছেদ, উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তির মামলার জন্য মুসলিমরা আলাদা আদালতে যেতেন। কিন্তু তিন তালাক কোরান-বিরোধী বলে দাবি করে ‘ভারতীয় মুসলিম মহিলা আন্দোলন’ নামে এক সংগঠন। এ বিষয়ে দীর্ঘ দিন ধরে তারা আন্দোলন চালিয়ে আসছে। সম্প্রতি তিন তালাক নিষিদ্ধ করা নিয়ে একটি আবেদন পত্রে সই করেন প্রায় ৫০ হাজার মুসলিম। যাঁদের মধ্যে মহিলা ও পুরুষ উভয়ই রয়েছেন। এ নিয়ে আদালতে একাধিক আবেদনও জমা পড়ে। তিন তালাক প্রথা বন্ধের দাবিতে মুসলিম মহিলাদেরই একটি অংশ সুপ্রিম কোর্টে জনস্বার্থ মামলা করেছেন।

দিন কয়েক আগেই ‘তিন তালাক’ প্রথাকে অসাংবিধানিক ও সভ্যতাবিরোধী বলেছিল কেন্দ্র। ন্যায়বিচার, সকলের মর্যাদা আর সমতার স্বার্থে ‘নারী-পুরুষের বিভাজনরেখা’টা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মুছে দেওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বেঙ্কাইয়া নাইডু। এরপরেই মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ডের তীব্র ক্ষোভের মুখে পড়তে হয়েছিল মোদী সরকারকে।

আরও পড়ুন: মন্ত্রী থাকাকালীন মৃত্যু হয়েছে যে ভারতীয় রাজনীতিকদের