• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

স্কলারশিপের ৪ কোটি টাকা হাতাতেই কি খুনের গল্প? সুদীক্ষা মৃত্যু নিয়ে বাড়ছে রহস্য

sudekkha
সুদীক্ষা ভাটি।

দুর্ঘটনা, নাকি হত্যা, উত্তরপ্রদেশের কৃতী ছাত্রীর মৃত্যু নিয়ে এখনও টানাপড়েন চলছে। পরিবার যদিও পুলিশের কাছে  বার বার দাবি করেছে , সুদীক্ষাকে হত্যা করাই হয়েছে। কিন্তু পুলিশ সেটা মানতে নারাজ। পাল্টা পুলিশের দাবি, সমস্ত প্রমাণ কিন্তু ইঙ্গিত করছে, দুর্ঘটনাতেই মৃত্যু হয়েছে যোগীর রাজ্যের এই কৃতী ছাত্রীর।

দাবি এবং পাল্টা দাবির মধ্যেই উঠে আসছে আরও একটি তথ্য। তদন্তকারীদের একটা অংশ বলছেন, ইচ্ছাকৃত ভাবেই ঘটনাটাকে ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। বিশাল অঙ্কের বিমার টাকার জন্যই নাকি দুর্ঘটনাকে হত্যার ঘটনা বলে চালানোর ‘চক্রান্ত’ করা হচ্ছে। আর এ ক্ষেত্রে পরিবারের দিকেও আঙুল উঠতে শুরু করেছে।

গত সোমবার বুলন্দশহরে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় সুদীক্ষার। ভাইয়ের সঙ্গে বাইকে করে যাওয়ার সময় দুর্ঘটনা ঘটে। রাস্তায় ছিটকে পড়ে মাথায় চোট পান সুদীক্ষা। হাসপাতালে নিয়ে গেলে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। এমনটাই জানিয়েছে পুলিশ।

কিন্তু সুদীক্ষার পরিবার পুলিশের কাছে দাবি করেছিলেন, ঘটনার দিন কাকা সত্য়েন্দ্র ভাটির সঙ্গে বাইকে চেপে এক আত্মীয়র বাড়ি যাচ্ছিলেন। সে সময় পথে কয়েক জন যুবক তাঁদের মেয়েকে উত্যক্ত করছিল। তাঁদের মধ্যে এক জন সুদীক্ষাদের বাইকে ইচ্ছাকৃত ভাবে ধাক্কা মারলে ছিটকে পড়ে গুরুতর জখম হন সুদীক্ষা। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার আগেই মৃত্যু হয় তাঁর। 

কিন্তু বুলন্দশহর পুলিশের এসএসপি সন্তোষ কুমার জানান, ঘটনার দিন সুদীক্ষার কাকা বাইক চালাচ্ছিলেন না। অথচ তাঁদের কাছে দাবি করা হয়েছে কাকা বাইক চালাচ্ছিলেন। তিনি আরও জানান, যে সময় দুর্ঘটনা ঘটে সে সময় সুদীক্ষার কাকা সত্যেন্দ্র ভাটির মোবাইলের টাওয়ার লোকেশন ছিল দাদরি। পুলিশের কাছে এই বিষয়টি গোপন করা হয়েছে বলে জানান সন্তোষ কুমার। দ্বিতীয়ত, হেনস্থার অভিযোগ করা হলেও, তার কোনও প্রমাণ মেলেনি। প্রত্যক্ষদর্শীরাও তেমনটাই জানিয়েছেন বলে দাবি এসএসপির। তা ছাড়া প্রথমে হেনস্থার কথা উল্লেখই করা হয়নি। তাঁর দাবি, এমন বেশ কিছু কথা যা পুলিশের কাছে গোপন করা হয়েছে। এর পিছনে বড় কোনও কারণ বা চক্রান্ত আছে কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সন্তোষ কুমার।

আরও পড়ুন: উঠতে পারে ‘মানচিত্র’ প্রসঙ্গ, ১৭ অগস্ট ভারত-নেপাল বিদেশমন্ত্রক পর্যায়ের বৈঠক

সুদীক্ষা চার কোটি টাকার স্কলারশিপ পেয়েছে। পুলিশের অনুমান, সেই টাকা হাতাতেই হত্যার গল্প ফাঁদা হতে পারে। সন্তোষ কুমার জানিয়েছেন, এই ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্তের জন্য বিশেষ তদন্তকারী দল গঠন করা হয়েছে।    

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন