দেশে ফিরতে চান বিজয় মাল্য। সংবাদ সংস্থা সূত্রের খবর, এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটকে এই বার্তা পাঠিয়েছেন আর্থিক জালিয়াতিতে অভিযুক্ত পলাতক শিল্পপতি। দেশের ব্যাঙ্কগুলির কাছ থেকে ৯০০০ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে তা শোধ না করে দেশ থেকে পালিয়েছিলেন মাল্য। সেই টাকা আদায়ে তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা চালাচ্ছে দেশের ব্যাঙ্কগুলি। বিভিন্ন তদন্তকারী সংস্থাও বেশ কিছু দিন ধরে তাকে দেশে ফেরাতে সচেষ্ট। টাকা জালিয়াতি করে বিদেশে পালিয়ে যাওয়া শিল্পপতিদের দেশে ফেরাতে বিশেষ বিল এনেছে কেন্দ্রও।

কিছুদিন আগে ব্রিটিশ আদালতের একটি রায়ও মাল্য-র বিরুদ্ধে যায়। ভারতীয় ব্যাঙ্কগুলিকে বকেয়া ৯০০০ কোটি টাকা ফেরত না দিলে বাজেয়াপ্ত করা হতে পারে  ধনকুবের বিজয় মাল্যের ব্রিটেনের বাড়ি, সম্পত্তি। স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া-সহ ভারতের ১৩ টি ব্যাঙ্কের করা মামলার প্রেক্ষিতে এই রায় দেয় ব্রিটেনের আদালত। এই নির্দেশের ফলে ভারতীয় ব্যাঙ্কগুলির প্রতিনিধিরা প্রয়োজনে হানা দিতে পারেন বিজয় মাল্যের হার্টফোর্ডশায়ারের বাগানবাড়িতে।

এসবের মধ্যেই আগামী ৩১ জুলাই ব্রিটেনের আদালতে উঠছে মাল্যকে ভারতে প্রত্যর্পণের মামলাটি। মাল্যের ১২৫০০ কোটি টাকার সম্পত্তির দখল নিতেও মরিয়া এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। এছাড়া আগামী ২৭ অগস্ট মাল্যকে আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছে মুম্বইয়ের একটি বিশেষ আদালত।

আরও পড়ুন: বিক্ষোভ-ভাঙচুরের পর উঠল মহারাষ্ট্র বন্‌ধ, স্বস্তিতে প্রশাসন

তাই এই মুহূর্তে সবদিক থেকেই কোণঠাসা মাল্য। বাজেয়াপ্ত করা হতে পারে তার ১২৫০০ কোটি টাকার সম্পত্তি, ইংল্যান্ডের বাগানবাড়ি, তাকে প্রত্যর্পণ করা হতে পারে ভারতে। নতুন পরিস্থিতিতে ভারতীয় তদন্তকারী সংস্থাগুলিকে সবরকম সহযোগিতার আশ্বাস দেওয়া ছাড়া আর কিছুই করার ছিল না মাল্যের। আর ঠিক তাই করলেন তিনি।