ম্যানহোলের ঢাকনা খুলে একটি হোটেলের নর্দমা পরিষ্কার করার সময় দম আটকে মৃত্যু হল সাত জনের। মৃতদের মধ্যে হোটেলের তিন কর্মীও রয়েছেন। বাকি চার জন সাফাই-কর্মী। অভিযোগ, কোনও নিরাপত্তার ব্যবস্থা না করেই সাত জনকে নর্দমা সাফাই করতে নামিয়েছিলেন হোটেল-কর্তৃপক্ষ। হোটেল-মালিকের বিরুদ্ধে মামলা রুজু হয়েছে। সেপটিক ট্যাঙ্কের বিষাক্ত গ্যাসে দম আটকে সাত জনের মৃত্যু হয়েছে বলে পুলিশের সন্দেহ।

পুলিশ জানিয়েছে, ভদোদরা শহর থেকে ৩৫ কিলোমিটার দূরে দাভোইয়ের ফার্তিকুই গ্রামে একটি হোটেলে এই ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার। সাত জনকেই শনাক্ত করা গিয়েছে। ওই চার সাফাই-কর্মীকে ডেকে আনা হয়েছিল দাভোইয়ের ধুবাবি গ্রাম থেকে।

দাভোই ডিভিশনের ডিএসপি কল্পেশ সোলাঙ্কি বলেছেন, "ঘটনার কারণ এখনও নিশ্চিত ভাবে জানা যায়নি। অনুমান করা হচ্ছে, হোটেলের সেপটিক ট্যাঙ্কের বিষাক্ত গ্যাসেই দম আটকে দিয়ে মৃত্যু হয়েছে সাত জনের। তবে, সেই গ্যাসটা আসলে কী, তা এখনও জানা যায়নি। নর্দমা-সাফাইয়ে নামানোর সময় কারও জন্যই প্রয়োজনীয় নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেননি হোটল-কর্তৃপক্ষ। তদন্ত শুরু হয়েছে।"

আরও পড়ুন- ম্যানহোলের ঢাকনা খোলার কর্মী নিচ্ছে পুরসভা​

আরও পড়ুন- গরম, জলাভাবে আমেরিকার মরুভূমিতে মৃত্যু ভারতীয় শিশুর​

প্রত্যক্ষদর্শীদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ জানিয়েছে, প্রথমে নর্দমা পরিষ্কার করতে নামেন এক সাফাই-কর্মী। দীর্ঘ ক্ষণ তাঁর কোনও সাড়াশব্দ না পেয়ে ম্যানহোলে নেমে পড়েন বাকিরাও। তাঁদেরও কোনও সাড়াশব্দ না মেলায় গর্তে নামেন হোটেলের বাকি তিন কর্মী।

হোটেল-মালিকের নামে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে পুলিশের কাছে। সাফাই-কর্মীদের দিয়ে নর্দমা পরিষ্কারের কাজ বহু দিন আগেই নিষিদ্ধ হয়েছে। বৃহত্তর আন্দোলনও হয়েছে দেশ জুড়ে।

গত ফেব্রুয়ারিতে দেশের সাফাই-কর্মীদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নের উপর গুরুত্ব দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ইলাহাবাদে কুম্ভ মেলায় যাঁরা বাথরুম পরিষ্কার করেছিলেন, তাঁদের পাঁচ জনের পা ধুইয়ে দিয়ে বার্তা দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী।