শিল্পীর কোনও ধর্ম নেই! তবুও শুধুমাত্র মুসলিম বলেই আঘাতটা ধেয়ে এল ফিল্মস্টার আমির খানের দিকে!

শোনা যাচ্ছে, মহাভারতের উপর সিনেমা তৈরির পরিকল্পনা নিয়ে আমির নাকি অনেক দূর এগিয়েছেন। আমির ঘনিষ্ঠ মহলে দাবি করেছেন, এই সিনেমা তাঁর ‘ড্রিম প্রজেক্ট’। হয়ত তাঁকে দেখা যাবে কৃষ্ণের ভূমিকায়। এই নিয়ে গুঞ্জন তো ছিলই, শ্লেষও ঝরে পড়ছিল বিভিন্ন মহল থেকে। এ বার তাদের হয়েই আক্রমণে নামলেন ফ্রাসোয়াঁ গতিয়ের নামে ভারতে বসবাসকারী এক ফরাসি সাংবাদিক। শনিবার টুইট করে তিনি বলেছেন, ‘‘মুসলিম হয়ে কী ভাবে মহাভারতের মতো হিন্দুদের পবিত্র মহাকাব্যে অভিনয় করতে পারেন আমির? ইসলামের কোনও ধর্মগুরুর ভূমিকায় যদি হিন্দু অভিনেতাকে দেখা যায়, তবে কি মুসলিমরা মেনে নেবেন?’’ যদিও ফ্রাসোয়াঁ-র টুইট শুধু আর ফিল্মদুনিয়ায় আটকে নেই।

শিল্প-সাহিত্যে অসহিষ্ণুতার আঘাত ভারতে নতুন কিছু নয়। কালবুর্গির মতো লেখক, গৌরী লঙ্কেশের মতো সাংবাদিককে মারা হয়েছে গুলি করে। দেশের পরিস্থিতি নিয়ে মুখ খোলায় শাহরুখ খান কিংবা আমির খানদের আগেও পড়তে হয়েছিল গেরুয়া শিবিরের শাণিত বাক্যবাণের মুখে। তাত্পর্যপূর্ণ হল, আমিরকে যিনি টুইটে আক্রমণ করছেন, সেই ফ্রাসোয়াঁ আবার বিজেপি শিবিরের কাছের লোক বলে পরিচিত। হিন্দুত্বের প্রবক্তাও বটে।সেই ১৯৭১ সাল থেকেই তিনি ভারতে রয়েছেন।

আরও পড়ুন: পিছিয়ে পড়া এলাকায় যান, দলের সাংসদদের নির্দেশ মোদীর

আরও পড়ুন: পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি: চতুর্থ মামলায় ১৪ বছরের জেল লালুপ্রসাদের

প্রশ্ন উঠছে, ফ্রাসোয়াঁদের মদত দিচ্ছেন কারা? হাজার সমালোচনা সত্ত্বেও আমির, শাহরুখ, সলমন—এই তিন ‘খান’ এখনও পর্যন্ত বলিউডের বড় শক্তি। প্রশ্ন উঠছে, তবে কি ধর্মের ধুয়ো তুলে সেই শক্তিকে তছনছ করার চেষ্টা চলছে? তবে, আমিরের হয়ে মুখ খুলেছেন জাভেদ আখতার। তাঁর কথায়: ‘‘ভারতে সাম্প্রদায়িক বিষ ছড়ানোর জন্য বিদেশের কোনও কোনও এজেন্সি হয়ত সক্রিয় হয়ে উঠেছে। এরা ভারত সম্পর্কে কিছুই জানেনা।’’

শোনা যাচ্ছে, মহাভারতকে সেলুলয়েডে বন্দি করতে হয়তো খরচ হবে প্রায় এক হাজার কোটি টাকা।ফ্রাসোয়াঁর টুইট নিয়ে আমির খানের তরফে কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি।