শুরু হয়ে গিয়েছে ‘কাউন্টডাউন’।

তার পরেই মায়ের আঁচল ছেড়ে সাবালক হবে ‘অ্যাস্ট্রোস্যাট’। সোমবার পাড়ি দেবে মহাকাশে।

ভাবছেন, ‘অ্যাস্ট্রোস্যাট’ কী জিনিস?

একেবারেই দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি ‘অ্যাস্ট্রোস্যাট’ ভারতের প্রথম ‘স্পেস অবজারভেটরি’।

সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ‘পোলার স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিক্‌ল (পিএসএলভি) রকেটের সাহায্যে মহাকাশে পাড়ি দেবে এই কৃত্রিম উপগ্রহটি। ইসরোর তত্ত্বাবধানে তৈরি হয়েছে এই উপগ্রহ।

অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটা থেকে সোমবার সকালে পাড়ি দেবে প্রায় ১২০০ কেজি ওজনের কৃত্রিম এই উপগ্রহ।

ইসরোর এই প্রকল্প সফল হলেই আমেরিকা, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং জাপানের সঙ্গে একই ক্লাবের সদস্য হবে ভারত। কারণ, এই দেশগুলির প্রত্যেকেরই আছে নিজস্ব ‘স্পেস অবজারভেটরি’।

মহাকাশের কোথায় যাবে ‘অ্যাস্ট্রোস্যাট’?

ইসরোর বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, শ্রীহরিকোটায় সতীশ ধবন মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র থেকে পাড়ি দিয়ে উপগ্রহটি পৌঁছবে তার নিজস্ব কক্ষপথে। যা পৃথিবী থেকে ৬৫০ কিমি দূরে। উপগ্রহটির আয়ু বছর পাঁচেক।

কী কাজ করবে এই উপগ্রহটি?

বিভিন্ন নক্ষত্রপুঞ্জ, মহাকাশে থাকা কৃষ্ণ গহ্বরের চরিত্র বিশ্লেষণ করবে ‘অ্যাস্ট্রোস্যাট’। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, নক্ষত্রের জন্মচক্র পর্যালোচনা করবে উপগ্রহটি।

একই দিনে পিএসএলভি রকেটে চেপে নিজেদের কক্ষপথে পাড়ি দেবে চারটি মার্কিন ‘ন্যানো উপগ্রহ’। এ ছাড়াও, মহাকাশে পাঠানো হবে কানাডা এবং ইন্দোনেশিয়ার দু’টি কৃত্রিম উপগ্রহকেও।