তৃতীয় ফ্রন্ট নিয়ে তোড়জোড়ের আবহে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠক করতে শহরে আসছেন তেলঙ্গনার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও। সব ঠিকঠাক থাকলে আগামিকাল, সোমবার নবান্নে মমতার সঙ্গে তাঁর বৈঠক হবে। দুপুর সওয়া তিনটে থেকে দু’ঘণ্টা বৈঠকের জন্য নির্ধারিত রয়েছে। কালীঘাট মন্দিরেও যাওয়ার কথা রয়েছে চন্দ্রশেখর রাওয়ের।

কয়েক দিন আগেও একবার মমতা-রাও বৈঠকের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল। কিন্তু আচমকা অসুবিধা দেখা দেওয়ায় তখন আসতে পারেননি তেলঙ্গনা রাষ্ট্র সমিতির ওই নেতা। সেই বৈঠকই এ বার হতে চলেছে।

আগামী বছর লোকসভা ভোটের আগে বিজেপি-বিরোধী আঞ্চলিক দলগুলিকে নিয়ে জোট বাঁধতে উদ্যোগী হয়েছেন তৃণমূল নেত্রী। এই ধরনের জোটের ক্ষেত্রে নেতৃত্বের প্রশ্নে যে সমস্যা তৈরি হয়, তা আন্দাজ করে আগেভাগেই তিনি বলেছেন, ‘বাংলা পথ দেখাবে। কিন্তু কুর্সিতে বসবে না।’

তবে জোট-ভাবনা যে মূলত মমতাকে ঘিরেই আবর্তিত হচ্ছে, তা স্পষ্ট। নবান্ন সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই মমতার সঙ্গে অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নায়ডুর যোগাযোগ হয়েছে।

আরও পড়ুন: সনিয়া-রাহুলের প্রস্তাবে জোর বাড়ল ইয়েচুরির

শুক্রবার নরেন্দ্র মোদীর সরকারের উপর থেকে সমর্থন তুলে এনডিএ ছেড়েছে চন্দ্রবাবুর দল তেলুগু দেশম। এর পরেই তাঁর বিশ্বস্ত এক প্রতিনিধি মমতার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন বলে খবর। তৃণমূল সূত্রের খবর, তাঁদের সঙ্গে তেলুগু দেশম নেতৃত্বের নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে।

আঞ্চলিক দলগুলির জোট গড়ার ডাক প্রথম চন্দ্রশেখর রাও-ই দিয়েছিলেন। তখন মমতার সঙ্গে ফোনে কথাও হয়েছিল তাঁর। এ বার দুই মুখ্যমন্ত্রীর আসন্ন বৈঠক জাতীয় রাজনীতিতে নয়া সমীকরণ তৈরির নিরিখে বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে বলেই রাজনীতিকদের মত।