• সবাই যা পড়ছেন

  • নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

সাড়ে ৩ বছর পর কলকাতা দেখতে পাবে সূর্যগ্রহণ, দেখবে দার্জিলিং, কোচবিহারও

solar eclipse-main
ছবি- রয়টার্স।

Advertisement

সাড়ে তিন বছরেরও বেশি সময় পর আবার সূর্যগ্রহণ দেখতে পাবে কলকাতা। টানা ৩ ঘণ্টা ৫ মিনিট ধরে। দেখা যাবে কোচবিহার, দার্জিলিঙেও। ২৬ ডিসেম্বর। সেটা যদিও হবে আংশিক সূর্যগ্রহণ। ওই দিনই ভারতে কিন্তু সূর্যের বলয় গ্রাস। যা সবচেয়ে ভাল ভাবে দেখা যাবে দক্ষিণ ভারতে। বলয়গ্রাস অবশ্য কলকাতায় দেখা সম্ভব হবে না। সম্ভব হবে না পশ্চিমবঙ্গের কোথাও।

সল্টলেকের ‘পজিশনাল অ্যাস্ট্রোনমি সেন্টারে’র (পিএসি) অধিকর্তা সঞ্জীব সেন মঙ্গলবার এ কথা জানিয়েছেন।

এর আগে কলকাতার সূর্যগ্রহণ দেখার শেষ সৌভাগ্য হয়েছিল ২০১৬-র ৯ মার্চ। ভারতে না হলেও ওই সময় পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণের পথটা গিয়েছিল কাছাকাছি এলাকার উপর দিয়ে। ফলে, কলকাতা-সহ ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে আংশিক ভাবে দেখা গিয়েছিল সেই গ্রহণ। আর ৯ বছর আগেও এক বার সূর্যগ্রহণ দেখতে পেয়েছিল কলকাতা। ২০১০ সালের ১৫ জানুয়ারি। ওই সময় ভারতে হয়েছিল বলয়গ্রাস।

দেখা যাবে দার্জিলিং, কোচবিহারেও

সঞ্জীব জানিয়েছেন, এ রাজ্যে আংশিক সূর্যগ্রহণ সবচেয়ে বেশি সময় ধরে দেখা যাবে কলকাতায়। ৩ ঘণ্টা ৫ মিনিট। সকাল ৮টা ২৭ মিনিট থেকে ১১টা ৩২ মিনিট পর্যন্ত। কোচবিহারে আংশিক সূর্যগ্রহণ শুরু হবে সকাল ৮টা ৩৪ মিনিটে। শেষ হবে ২ ঘণ্টা ৫৪ মিনিট পর ১১টা ২৯ মিনিটে। আর দার্জিলিঙে আংশিক গ্রহণ শুরু হবে সকাল ৮টা ৩৩ মিনিটে। ২ ঘণ্টা ৫১ মিনিট পর তা শেষ হবে ১১টা ২৪ মিনিটে। আংশিক সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে আগরতলা, গুয়াহাটি, ভুবনেশ্বর, কোহিমা, আইজল, দিল্লি, বেঙ্গালুরু-সহ প্রায় গোটা ভারতেই।

বলয়গ্রাস সবচেয়ে বেশি ক্ষণ দেখা যাবে তিরুচিরাপল্লিতে

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, এ বার সূর্যের বলয়গ্রাসের পথটা গিয়েছে দক্ষিণ ভারতের উপর দিয়ে। বলয়গ্রাস সবচেয়ে বেশি ক্ষণ ধরে দেখা যাবে তামিলনাড়ুর উটি ও তিরুচিরাপল্লিতে। ৩ মিনিট ১৭ সেকেন্ড। তিরুচিরাপল্লিতে বলয়গ্রাস সেখানে শুরু হবে ৯টা ৩০ মিনিটে। শেষ হবে ৯টা ৩৩ মিনিটের কিছু পরে। তবে পাহাড়ি এলাকা উটিতেই বলয়গ্রাস বেশি ভাল দেখা যাবে।

এ ছাড়াও কোঝিকোড়,  ম্যাঙ্গালোর ও মাদুরাই-সহ দক্ষিণ ভারতের একটি বড় অংশ জুড়ে এ বার দেখা যাবে সূর্যের বলয়গ্রাস।

৩৯ বছর আগে কলকাতা দেখেছিল...

পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখার সৌভাগ্য কলকাতা-সহ এ রাজ্যের হয়েছিল ৩৯ বছর আগে। ১৯৮০ সালে। তার পর ১৯৯৫, ১৯৯৯ ও ২০০৯ সালেও ভারতে হয়েছে সূর্যগ্রহণ। সেই সময়েও কয়েক বার আংশিক সূর্যগ্রহণ দেখা গিয়েছিল কলকাতা-সহ রাজ্যের কয়েকটি জেলা থেকে।

সূর্যের বলয়গ্রাস আর পূর্ণগ্রাসের মধ্যে ফারাকটা কোথায়? দেখুন ভিডিয়ো

আরও পড়ুন- সৌরমণ্ডলের বাইরে থেকে আসা ‘পাগলা ঘোড়া’ এ বার বাংলার আকাশে​

আরও পড়ুন- ছিটকে বেরচ্ছে লক্ষ কোটি সূচ, তাতাচ্ছে সূর্যকে, দেখালেন হুগলির কৃষক-সন্তান

সূর্যের আলোতেই আলোকিত হয় সবক’টি গ্রহ ও উপগ্রহ। চাঁদ মাঝখানে এসে পড়লে যখন পুরোপুরি সূর্যকে ঢেকে দেয়, তখন তার ছায়া ঢেকে ফেলে পৃথিবীকে। সেটাই পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ। তখন পৃথিবী থেকে সূর্যকে আর দেখা যায় না। দিনেও নেমে আসে রাতের মতো ঘুটঘুটে অন্ধকার।

আর সূর্যের আংশিক গ্রহণ তখনই হয়, যখন মাঝখানে ঢুকে পড়েও চাঁদ পুরোপুরি ঢেকে দিতে পারে না সূর্যকে। তার ফলে, কিছু ক্ষণের জন্য সূর্য ঢাকা পড়ে চাঁদে।

যখন সূর্যের পূর্ণগ্রাস। দিনে নেমে আসে রাতের ঘুটঘুটে অন্ধকার। ছবি- রয়টার্স।

সেই ‘রিং অফ ফায়ার’!

সূর্যের বলয়গ্রাসের সময় চাঁদ শুধুই সূর্যের কেন্দ্রটিকে ঢেকে দেয়। একটা চাকতির মতো। তার চার পাশ থেকে বেরিয়ে আসে সূর্যের আলো। যেন ‘রিং অফ ফায়ার’!

‘‘বলয়গ্রাস সাধারণত হয় বছরের শেষ থেকে বছরের শুরুতে। ডিসেম্বর থেকে জানুয়ারির মধ্যে। অন্য কোনও সময় সূর্যের বলয়গ্রাস ততটা দেখা যায় না’’, বলছেন পজিশনাল অ্যাস্ট্রোনমি সেন্টারের অধিকর্তা সঞ্জীব সেন।

গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন