Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২১ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

রক্তাল্পতা নিয়ে ভুল ধারণা

ঊর্মি নাথ
২৮ এপ্রিল ২০১৮ ২০:৪৩

রঞ্জার ইদানীং একটু কাজ করলেই ক্লান্ত লাগে। সে রকম খিদেও নেই। ডাক্তারের নির্দেশ অনুসারে রক্ত পরীক্ষা করে দেখা গেল, তাঁর রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা কম। তিনি অ্যানিমিয়া বা রক্তাল্পতার শিকার। খবরটা শুনে তাঁর পরিচিতরা বললেন, ‘যাক, চিন্তা করার কিছু নেই। অধিকাংশ ভারতীয় মেয়েই রক্তাল্পতায় ভোগে।’ এটা শুধু মাত্র রঞ্জার ঘটনা নয়। এমন কথা ছোট থেকে অধিকাংশ বাঙালি বা ভারতীয় মেয়েই শুনে আসছেন। কিন্তু সত্যিই কি তাই? না, কথাটির কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। নিয়মিত পুষ্টিকর আহার করলেই রক্তাল্পতা থেকে রেহাই পাওয়া যায়।

এ রোগের লক্ষণ

খুব তাড়াতাড়ি ক্লান্ত হয়ে পড়া, শ্বাসকষ্ট, স্নায়ুর সমস্যা, খিদে না পাওয়া, মানসিক অবসাদ, হাত পা ঝিনঝিন করা রক্তাল্পতার অন্যতম লক্ষণ। অনেকের ধারণা স্থূলকায়াদের রক্তাল্পতা হয় না। ধারণাটা ভুল। যিনি স্থূলকায়, তিনি হয়তো অনেক কিছুই খাচ্ছেন। কিন্তু তাঁর খাবারে আয়রনের অভাব থাকতেই পারে।

Advertisement

রক্তাল্পতার কারণ

প্রতি মাসে মেয়েদের ঋতুস্রাবের জন্য অনেকটা রক্ত শরীর থেকে বেরিয়ে যায়। ফলে আয়রনের মাত্রা এই সময়ে অনেকটাই কমে যায়। যাঁদের অতিরিক্ত ঋতুস্রাব হয়, তাঁদের সমস্যাও বেশি। এই সময় একমাত্র খাবারের মাধ্যমে রক্তে আয়রনের মাত্রা পূরণ করে ফেলা যায়। কিন্তু বেশির ভাগ ভারতীয় মহিলা তাঁদের খাওয়া নিয়ে মোটেই সচেতন নন। তাই ভারতের অধিকাংশ মহিলা হিমোগ্লোবিনজনিত অ্যানিমিয়ার শিকার। এই সমস্যাই জন্ম দিয়েছে ‘মেয়েদের রক্তাল্পতা স্বাভাবিক’ জাতীয় ধারণার।

হাড়ের মজ্জার মধ্যে লোহিত রক্ত কণিকা তৈরি হয়। তাই মজ্জায় কোনও অসুখ থাকলে লোহিত রক্ত কণিকা ঠিক মতো তৈরি হয় না। কিডনি থেকে একটি হরমোন নির্গত হয়, যা হাড়ের মজ্জায় লোহিত রক্ত কণিকা তৈরি হতে সাহায্য করে। কিডনির যে কোনও সমস্যা রক্তাল্পতার অন্যতম কারণ। কিডনির সমস্যা থেকে হয় অ্যাপ্লাস্টিক অ্যানিমিয়া। এ ছাড়া ভাইরাল ইনফেকশন হাড়ের মজ্জায় রক্ত কণিকা সাময়িক ভাবে তৈরি হতে বাধা দেয়।



থ্যালাসেমিয়া, থাইরয়েডের সমস্যা, ক্যানসার, এডস, লিভারের সমস্যা, ম্যালেরিয়া, ভাইরাল হেপাটাইটিস, রক্তাল্পতার অন্যতম কারণ। বিশেষ করে ব্লাড ক্যানসার লোহিত কণিকা তৈরি হতে দেয় না। কেমোথেরাপির জন্য সাময়িক রক্তাল্পতা হতে পারে।

পাকস্থলী বা কোলনে আলসার বা টিউমার হলে শরীরের ভিতর ক্রমাগত রক্তপাত হতে থাকে, যা চট করে টের পাওয়া যায় না। এই কারণেও রক্তাল্পতা হয়।

বি-১২ ও ফোলিক অ্যাসিডের অভাবেও অ্যানিমিয়া হয়। আমিষ খাবারে বি-১২ থাকে। তাই নিরামিষাশীদের মধ্যে বি-১২ জনিত অ্যানিমিয়া হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

জন্মগত কারণটিকেও একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যায় না। থ্যালাসেমিয়ার কারণে রক্তের মধ্যে তাড়াতাড়ি হিমোগ্লোবিন ভেঙে যায়। একে বলে হিমোলাইটিস অ্যানিমিয়া।

অপরিষ্কার শৌচাগার ব্যবহার করলে কৃমি বা হুকওয়ার্মের সমস্যা হতে পারে। কৃমি পাকস্থলী থেকে রক্ত শুষে নেয়। ফলে কৃমি রক্তাল্পতার অন্যতম কারণ।

এই সব কারণের বাইরে ফোলিক অ্যাসিডের অভাবেও রক্তাল্পতা হয়। রক্তাল্পতার রোগীদের মধ্যে শিশুদের সংখ্যা তুলনায় কম। কারণ মায়েরা তাদের খাওয়াদাওয়া নিয়ে সচেতন থাকেন। কিন্তু অনেক সময় কোনও শিশু জন্মায় অপুষ্টি নিয়ে। সে ক্ষেত্রে তাদের রক্তাল্পতার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

রক্তাল্পতায় কী খাবেন

রক্তাল্পতার হাত থেকে বাঁচতে গেলে মাছ, পাঁঠার মেটে, ডিম, মোচা, থোড়, কাঁচকলা, সবুজ আনাজ, খেজুর, ছোলা, সামুদ্রিক মাছ, কাঁকড়া, টম্যাটো, বিট, বাদাম, মধু, ওটস, আপেল, বেদানা রোজকার ডায়েটে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে থাকতে হবে। আয়রন ট্যাবলেট অনেকেই সহ্য করতে পারেন না। সে ক্ষেত্রে কুলেখাড়া পাতার রস বেশ কার্যকরী। নিয়মিত অতিরিক্ত মদ্যপানও রক্তাল্পতার অন্যতম কারণ। মেয়েদের ক্ষেত্রে প্রেগন্যান্সি, মেনোপজ ও প্রিমেনোপজের সময়ে এবং ছেলেদের বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রক্তাল্পতা হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তাই ডায়েটের দিকে বিশেষ নিজর দিতে হবে।

অ্যানিমিয়া ক্রনিক হোক বা অ্যাকিউট, চিকিৎসার মধ্যেই থাকা উচিত। হিমোগ্লোবিনের মাত্রা খেয়াল রাখার জন্য দরকার নিয়মিত রক্ত পরীক্ষার। ক্রনিক অ্যানিমিয়া অসুস্থ হার্টের কার্যক্ষমতা আরও কমিয়ে দেয়। মধুমেহ রোগীদের রক্তাল্পতা হলে শীঘ্র চিকিৎসা করা উচিত। রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা ১০-এর নীচে গেলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

কয়েকটি সহজ নিয়মের মধ্য দিয়ে গেলেই রক্তাল্পতা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তাই ভুল ধারণা আঁকড়ে সমস্যা এড়িয়ে যাবেন না। রক্তাল্পতার প্রতি উদাসীনতা ভবিষ্যতে বড় সমস্যা তৈরি করে।

পরামর্শ: ডা. বিশ্বজিৎ ঘোষ দস্তিদার

মডেল: অর্পিতা, মেকআপ: সুবীর মণ্ডল, হেয়ার: সুরজিৎ দাশগুপ্ত, ছবি: অয়ন নন্দী, লোকেশন: দ্য সনেট, সল্টলেক।

আরও পড়ুন

Advertisement