×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

ডিজিটাল ব্যাঙ্কিং করতেই হয়, চোরও সুযোগ নেয়, জানেন কি বাঁচাতে এসে গেছে বিমা?

সুপর্ণ পাঠক
২০ জানুয়ারি ২০২১ ১৬:১১
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

গত কয়েক বছর ধরেই অনলাইন ব্যাঙ্কিং-এর ফাঁক-ফোকড় দিয়ে আপনার টাকা হাতাতে কাজ করে চলেছে নানান চোরের দল। জামতারা জায়গাটা বিখ্যাতই হয়ে গেল এই চোরেদের জায়গা হিসাবে। এমনকী ওয়েবসিরিজেও। অনেকেই তাই চেকেই কারবার করতে পছন্দ করেন। কিন্তু সে পথেও তো বিপদ কম নয়। সাইবার সিকিউরিটি সংস্থা নরটন লাইফলক-এর এক সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে যত জনকে প্রশ্ন করা হয়েছিল তাঁদের ৮০ শতাংশই কোনও না কোনও ভাবে সাইবার চোরদের শিকার। চেক জাল করে চুরির সংখ্যাও কম নয়। তার উপর রয়েছে সই না-মেলার হ্যাপা।

ভারতের বাজারে তাই এখন এই ধরনের চুরির ঝুঁকি এড়াতেও বিমা এসে গিয়েছে। এক লক্ষ টাকার বিমা কিনতে বছরে লাগবে মাত্র ৩১৫ টাকার মতো।

টাকা চুরিটাই কিন্তু একমাত্র ঝুঁকি নয়। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মোবাইলে ফেসবুক করছেন, চুরি হয়ে যাচ্ছে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য। তাই দিয়ে অপরাধীরা কিছু করলে বিপদে পড়ছেন আপনি। কিন্তু থানা-পুলিস করতে গেলে তো খরচ আছে, আর তার ভয়েই অনেক অপরাধ মেনে নিতে বাধ্য হচ্ছেন। নতুন এই বিমা কিন্তু আপনাকে সেই সব ঝামেলা থেকেও রক্ষা করবে।

Advertisement

কত প্রিমিয়াম?

ক) ১৮৩ টাকা প্রিমিয়ামে ৫০,০০০ টাকার বিমা

খ) ৩১২ টাকায় ১ লক্ষ টাকার কভারেজ

গ) ৫৬১ টাকায় ২ লক্ষ টাকার কভারেজ

এক কোটি টাকা পর্যন্ত এই বিমা আপনি কিনতে পারেন। প্রিমিয়ামের হিসাব অবশ্যই আনুমানিক।

কী কী কারণে পাবেন

যাবতীয় অনলাইন লেনদেন, ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ডে দাম চোকানো, ভিম বা ইউপিআই, ফিসিং, মোবাইল ওয়ালেট লেনদেনে টাকা মার গেলে এই বিমা আপনার রক্ষা কবচ হতে পারে। তবে ক্ষতি হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে আপনাকে টাকা দাবি করতে হবে।

এই বিমা কিন্তু শুধু যে দেশের মধ্যেই প্রযোজ্য তা নয়। বিদেশ বেড়াতে গিয়ে অনলাইনে টাকা খোয়ালেও কিন্তু আপনি বিমার টাকা দাবি করতে পারবেন।



Tags:

Advertisement