সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

চিত্র সংবাদ

রহস্যেঘেরা পৃথিবীর দশটি গুহা

শেয়ার করুন
১০ 7
মার্বেল কেভ: অনেকগুলি গুহামুখ। প্যাটাগোনিয়ার এই গুহা তৈরি হয়েছে জেনারেল ক্যারেরা হ্রদের জলের আঘাতে। এর ভিতরে নৌকা চালিয়ে যাওয়া যায়। সূর্যের আলো জ্বলে প্রতিফলিত হয়ে গুহার রং পরিবর্তন হয়।
১০ 5
গ্লোওয়ার্ম কেভ: দেখে মনে হবে অন্ধকার গুহাতে কেউ যেন আলো জ্বালিয়ে রেখেছে। আবার জোনাকি বলেও ভ্রম হতে পারে। নিউজিল্যান্ডের এই গুহাটির এ রকম বিশেষত্বের জন্য প্রচুর পর্যটক আসেন। গুহার দেওয়ালে ও ছাদে প্রচুর গ্লোওয়ার্ম রয়েছে। যাদের গায়ের থেকে এক রকম আলো বেরোয়।
১০ 10
সন ডুং কেভ: বিশ্বের বৃহত্তম গুহা। কয়েক লক্ষ বছরের পুরনো এই গুহা।
১০ 8
অ্যালগ্রেভের গুহা: পর্তুগালের এই গুহাটি অ্যালগ্রেভের সমুদ্রোপকূলে রয়েছে। অনেকটা ইগলুর মতো দেখতে এই গুহাটি সামুদ্রিক ক্ষয়কাজের ফলে তৈরি।
১০ 9
মাটনোভস্কি গুহা: অস্ট্রিয়া ও আইসল্যান্ডে এ রকম বরফের গুহা দেখতে পাওয়া যায়। এই গুহাটি মাটনোভস্তি আগ্নেয়গিরির কাছে তারি হয়েছে। হিমবাহের দ্বারা তৈরি এই গুহা।
১০ 1
পেইন্টেড কেভ: ক্যালিফোর্নিয়ার সান্তাক্রুজ দ্বীপের এই প্রাকৃতিক গুহাটি রয়েছে। পাথর, লাইকেন ও শৈবালের কারণেই গুহার ভিতরটা রংবেরঙের। গুহার ভিতরে রংবেরঙের ফুলও রয়েছে।
১০ 6
অ্যান্টিলোপ ক্যানিয়ন: পাথরের ফাঁক দিয়ে জল চুঁইয়ে চুঁইয়ে পড়ে ক্ষয়ে গিয়ে এই গুহার সৃষ্টি। আমেরিকার দক্ষিণ-পশ্চিমে নাভাজোতে এই ক্যানিয়নের দু’টি ভাগ রয়েছে— আপার অ্যান্টিলোপ ও লোয়ার অ্যান্টিলোপ।
১০ 4
কেভ অফ সোয়ালোস: এটা পিট কেভ গোত্রের। গুহামুখ ডিম্বাকৃতির। স্পোর্ট অ্যাডভেঞ্চারাররা এখানে ফ্রি-ফলিং করেন। মেক্সিকোর এই গুহার আয়তন এত বড় যে নিউ ইয়র্কের ক্রাইসলার বিল্ডিং অনায়াসে এর মধ্যে ঢুকে যাবে।
১০ 3
সোনোরা: টেক্সাসের সাটন কান্ট্রিতে সোনোরাতে এই গুহাটি রয়েছে। বিশ্বমানের গুহা এটি। হেলিসাইটে তৈরি। ক্রিটাসিয়াস যুগে এই গুহাটি তৈরি হয়।
১০১০ 2
ফিঙ্গাল’স কেভ: স্কটল্যান্ডের এই গুহাটি স্টাফা দ্বীপের ইনার হেব্রাইডস এ অবস্থিত। ষড়ভুজাকৃতির এই গুহাটি ব্যাসল্ট শিলার পিলারের উপর দাঁড়িয়ে রয়েছে। দেখে মনে হবে কৃত্রিম ভাবে তৈরি।
  • Tags

Advertisement

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
বাছাই খবর
আরও পড়ুন