আই লিগের আট ক্লাবের বিদ্রোহের জেরে বন্ধ হওয়ার মুখে সুপার কাপ। সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের সচিব শুক্রবার দিল্লি থেকে ফোনে বলে দিলেন, ‘‘এ রকম চললে সুপার কাপ বন্ধ করে দেব। ক্লাবগুলিকে নানাভাবে বোঝানোর চেষ্টা করছি। চিঠি দিচ্ছি। যদি ওরা তাতেও রাজি না হয়, তা হলে প্রতিযোগিতা করে লাভ নেই।’’ যোগ করেন, ‘‘শনিবার যোগ্যতা নির্ণায়ক পর্বের খেলা শেষ হওয়ার পরেই আলোচনা করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেব।’’ 

শুক্রবার ভুবনেশ্বরে সুপার কাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বে এফসি পুনে সিটি-র বিরুদ্ধে দলই নামায়নি মিনার্ভা এফসি। কলিঙ্গ স্টেডিয়ামে না গিয়ে মহম্মদ আল আমনারা গেলেন চণ্ডীগড় ফেরার বিমান ধরতে। মিনার্ভার পথে হাঁটল আই লিগের আরও দুটি ক্লাব গোকুলম ও আইজল এফসিও। দু’টি দল ভুবনেশ্বরে থাকা সত্ত্বেও ম্যানেজারদের সভা বা নির্ধারিত সাংবাদিক সম্মেলনে লোক পাঠায়নি। 

সুপার কাপ নিয়ে ডামাডোলের মধ্যেই ইস্টবেঙ্গলকে চিঠি পাঠাল ফেডারেশন। জানতে চাওয়া হল, এক) ১৮ মার্চের মধ্যে জানান সুপার কাপ খেলবেন কি না। দুই) ২০ মার্চের মধ্যে জানাতে হবে আইএসএলে আগামী মরসুমে ইস্টবেঙ্গল খেলবে কি না। লাল-হলুদ কর্তাদের একাংশ আগ্রহী সুপার কাপে খেলার ব্যাপারে। প্রাক্তন তারকারাও তাঁদের সঙ্গে একমত। সুব্রত ভট্টাচার্য বললেন, ‘‘সর্বভারতীয় প্রতিযোগিতায় ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগান খেলবে না, এটা কাম্য নয়।’’ শ্যাম থাপাও বলেছেন, ‘‘আইএসএলের দলগুলোকে হারিয়ে সুপার কাপে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার সুযোগ হাতছাড়া করা উচিত নয় ইস্টবেঙ্গল ও মোহনবাগানের।’’ এই প্রেক্ষিতে সোমবার কার্যকরী কমিটির বৈঠক ডেকেছে ইস্টবেঙ্গল। এ দিকে, সুপার কাপের যোগ্যতাপর্বের ম্যাচে শুক্রবার কেরল ব্লাস্টার্সকে ২-০ হারিয়েছে ইন্ডিয়ান অ্যারোজ।

 দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯