• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

হতাশ জবিকে উদ্বুদ্ধ করতে বিশেষ ক্লাস আলেসান্দ্রোর

Jobby
আলোচনা: অনুশীলনের আগে জবির সঙ্গে আলেসান্দ্রো। নিজস্ব চিত্র

আই লিগে ইস্টবেঙ্গল বনাম মোহনবাগান দ্বিতীয় পর্বের ডার্বির সপ্তাহ দু’য়েক আগে দুই শিবিরে দুই ছবি। ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া সনি নর্দেরা যখন প্রস্তুতিতে নেমে পড়েছেন, লাল-হলুদ শিবিরে তখন ডার্বি নিয়ে ফুটবলারদের ভাবতেই বারণ করে দিয়েছেন আলেসান্দ্রো মেনেন্দেস গার্সিয়া! ইস্টবেঙ্গল কোচের আশঙ্কা মোহনবাগানকে নিয়ে বেশি ভাবলে শুক্রবার ইন্ডিয়ান অ্যারোজের বিরুদ্ধে সমস্যায় পড়বে দল।

অথচ ইন্ডিয়ান অ্যারোজের বিরুদ্ধে ম্যাচের আটচল্লিশ ঘণ্টা আগে লাল-হলুদ শিবিরে অনুশীলনের চেয়ে টিম মিটিংয়েই বেশি জোর দিলেন স্প্যানিশ কোচ!

চেন্নাই সিটি এফসি ম্যাচ খেলে চব্বিশ ঘণ্টা আগেই কলকাতায় ফিরেছে ইস্টবেঙ্গল। সাধারণত ম্যাচের পরের দিন ফুটবলারদের রিকভারি ট্রেনিং করান আলেসান্দ্রো। পরের দিন সম্পূর্ণ বিশ্রাম। এ বারই দেখা গেল ব্যতিক্রমী ছবি। বুধবার সকালে যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গন সংলগ্ন মাঠে অনুশীলন শুরু হওয়ার আগে হঠাৎই ফুটবলারদের ডেকে নিলেন আলেসান্দ্রো। মাঠের মধ্যেই প্রায় মিনিট কুড়ি টিম মিটিং করলেন। এখানেই শেষ নয়। জবি জাস্টিনকে নিয়ে লাল-হলুদ কোচ চলে গেলেন মাঠের মাঝখানে। সঙ্গে দুই সহকারী বাস্তব রায় ও মারিয়ো রিভেরা। প্রায় মিনিট পনেরো ইস্টবেঙ্গল স্ট্রাইকারের সঙ্গে একান্তে কথা বললেন আলেসান্দ্রো।

কোয়ম্বত্তূরে একা চেন্নাই গোলরক্ষককে পেয়েও গোল করতে পারেননি জবি। তাঁর প্লেসিং গোলপোস্টের গা ঘেঁষে বেরিয়ে গিয়েছিল। চেন্নাইয়ের বিরুদ্ধে ১-২ হারের জন্য জবিকে অবশ্য কেউ দায়ী করেননি। কিন্তু জানা গিয়েছে, লাল-হলুদ স্ট্রাইকার মানসিক ভাবে ভেঙে পড়ছেন। জবিকে চাঙ্গা করতেই বিশেষ ক্লাস নিলেন আলেসান্দ্রো। শুধু তা-ই নয়। কী করলে ভুলের পুনরাবৃত্তি আটকানো সম্ভব, বোঝানোর চেষ্টাও করলেন। কোচের সঙ্গে কথা বলার পরেও পুরোপুরি হতাশা কাটিয়ে উঠতে পারেননি জবি। নিজেকে অদ্ভুত ভাবে গুটিয়ে রাখলেন। 

১৪ জানুয়ারি ছিল লালরামচুলোভার জন্মদিন। কিন্তু লাল কার্ড দেখায় তিনি কোয়ম্বত্তূরে দলের সঙ্গে যাননি। বুধবার ছিল রোহুলপুইয়ার জন্মদিন। অনুশীলনের পরে দুজনে একসঙ্গে কেক কাটলেন। কোচ থেকে ফুটবলার— সবাই গান গাইলেন, একে অন্যের মুখে কেক মাখিয়ে দিলেন। অথচ জবি থমথমে মুখে দাঁড়িয়ে থাকলেন দূরে। সতীর্থেরা বেরিয়ে যাওয়ার পরে ফিজিয়োথেরাপিস্টকে নিয়ে ড্রেসিংরুমে ঢুকে পড়লেন। বেরোলেন প্রায় ঘণ্টা দেড়েক পরে। শুক্রবার ইন্ডিয়ান অ্যারোজের বিরুদ্ধেই যে নিজেকে প্রমাণ করতে চান, তা জবির শরীরী ভাষাতে স্পষ্ট।

বাকি ফুটবলারদের কী বললেন কোচ? সদ্য ইস্টবেঙ্গলে যোগ দেওয়া মিডফিল্ডার সিয়াম হাঙ্গাল বলছিলেন, ‘‘শুক্রবার ইন্ডিয়ান অ্যারোজের বিরুদ্ধে ম্যাচ। ২৭ জানুয়ারি ডার্বি। তাই এই মুহূর্তে ইন্ডিয়ান অ্যারোজ ছাড়া অন্য কোনও ম্যাচ নিয়ে ভাবতে একদম বারণ করে দিয়েছেন কোচ।’’

আই লিগ টেবলে ১২ ম্যাচে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে আট নম্বরে বিদেশিহীন ইন্ডিয়ান অ্যারোজ। এক ম্যাচ কম খেলে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে ষষ্ঠ স্থানে জনি আকোস্তোরা। তা হলে কেন ইস্টবেঙ্গল কোচ ফুটবলারদের এই মুহূর্তে ডার্বি নিয়ে ভাবতে বারণ করে দিয়েছেন? হাঙ্গাল বলছেন, ‘‘কোচ মনে করছেন ডার্বি নিয়ে ভাবতে শুরু করলে মনঃসংযোগে ব্যাখাত ঘটবে। যার প্রভাব ইন্ডিয়ান অ্যারোজ ম্যাচে পড়তে পারে।’’ তিনি যোগ করলেন, ‘‘চেন্নাই ম্যাচের ব্যর্থতাও দ্রুত ভুলে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন কোচ। বলেছেন, সামনের দিকে তাকাও।’’ হাঙ্গালের মতে ইস্টবেঙ্গলের আই লিগ জয়ের সম্ভাবনা এখনও শেষ হয়ে যায়নি।’’ তাঁর কথায়, ‘‘এখনও অনেক ম্যাচ বাকি রয়েছে। চেন্নাইও পয়েন্ট নষ্ট করতে পারে। তাই হাল ছাড়লে চলবে না।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন