• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

তোমার মতো শরীর যদি আমারও হত, রাফাকে ম্যাকেনরো

Nadal
সান্ত্বনা: ম্যাচের পরে চিচিপাসের সঙ্গে নাদাল।

Advertisement

কোয়ার্টার ফাইনালের পরে জন ম্যাকেনরো চমকে দিয়েছিলেন কোর্টে নেওয়া সাক্ষাৎকারে রাফায়েল নাদালকে জামা খুলতে বলে। আর সেমিফাইনালে স্প্যানিশ তারকা গ্রিসের স্তেফানোস চিচিপাসকে কার্যত উড়িয়ে দেওয়ার পরে কিংবদন্তি ম্যাকেনরোকে পাওয়া গেল আরও খোলামেলা মেজাজে।

সেমিফাইনাল নিয়ে প্রত্যাশিত প্রশ্নের প্রসঙ্গে যাওয়ার আগে ম্যাকেনরো একেবারে অন্য বিষয়ে চলে গেলন। সেটা এ রকম—

ম্যাকেনরো: আজ আমি যা বলব তাতে সবাই আমাকে হিংসে করবেই। স্বীকার করছি দ্বিতীয় সেট শেষ হতেই আজ আমাকে বাথরুমে যেতে হয়েছিল। সেখান থেকে দ্রুত ফেরার সময় আমি নগ্ন রাফায়েল নাদালকে দেখে ফেলেছি।

নাদাল:  আপনার অনুভূতিটা কী? 

ম্যাকেনরো: মনে হয়েছিল আমার আর তোমার দেহের গঠন একই রকম। না, মিথ্যে কথা বললাম। আসলে তখন নিজেকে বলেছিলাম, ইস, আমার যদি তোমার মতো শরীর হত!

এ হেন কথোপকথনে রড লেভার এরিনায় দর্শকেরা হাসিতে ফেটে পড়েন। তার পরেই অবশ্য ম্যাচ নিয়ে আলোচনায় চলে যান ম্যাকেনরো। এবং পঞ্চম বার অস্ট্রেলীয় ওপেনের ফাইনালে ওঠা রাফাকে বলতে শোনা যায়, ‘‘সত্যিই খুব ভাল একটা ম্যাচ খেললাম। মনে হয়, এখানে এ বার সব ম্যাচই আমি খুব ভাল খেলেছি। বহুদিন প্রতিযোগিতার বাইরে ছিলাম। তার পরে এখানকার পরিবেশে এসে নিজের মধ্যে যেন বাড়তি একটা উদ্যম খুঁজে পাচ্ছি। সব মিলিয়ে এক অবিশ্বাস্য অনুভূতি।’’ সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘‘চার-পাঁচ মাস পরে ফিরে এসে এ রকম টেনিস খেলাটা আমার নিজের কাছেই অপ্রত্যাশিত। ভাবিইনি এতটা ভাল খেলব। আসলে বয়স বাড়লে কম খেলতেই হয়। তাতে নিজের খেলার ধার কিন্তু কমে না। আমার ক্ষেত্রেও সেটাই হয়েছে।’’ বিস্ময়কর ভাবে টানা ৬৩টি ম্যাচ নাদাল কোনও সার্ভিস নষ্ট করেননি। হারেননি সেটও। যা নিয়ে তাঁর কথা, ‘‘অবশ্যই আমি এখন খুব ভাল খেলছি। এখানেও খেললাম। প্রতিটি ম্যাচেই কম-বেশি অনেক কিছুই বেশ ভাল করেছি। আজ স্তেফানোসের বিরুদ্ধেও সেটাই হয়েছে। সম্ভবত আজ আমার ব্যাকহ্যান্ড শটগুলো অন্য ম্যাচের তুলনায় ভাল হয়েছে। এটা আমার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ফোরহ্যান্ড নিয়ে কোনও সমস্যা নেই। ওটা খুব ভাল মারছি এখন। পাশাপাশি ব্যাকহ্যান্ডেও উন্নতি এ বার করছি।’’ তার পরে সাংবাদিকদেরই উল্টে নাদাল বলেন, ‘‘এটা তো আপনারাও দেখছেন, আমি কি ঠিক বলছি না?’’ কোর্টে সাক্ষাৎকার নেওয়ার সময় ম্যাকেনরো তাঁকে প্রশ্ন করেন, ‘‘আবার কেন তুমি হাতকাটা শার্ট পরে খেলছে?’’ তাতে রাফার জবাব, ‘‘খুব গরমে খেলার সময় আমার ফোরহ্যান্ড শট নিয়ে একটু সমস্যা থাকে। হাতকাটা শার্ট পরে খেললে কেন জানি না নিজেকে অনেক কম বয়সি মনে হয়।’’    

এ দিকে, চিচিপাসকে এখন বলা হচ্ছে গ্রিক টেনিসের ‘দেবতা’। এখানে রজার ফেডেরারকে হারানোর পরে তিনি কার্যত নিজের দেশে জাতীয় নায়কে পরিণত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার হেরে গেলেও নাদালও তাঁর দারুণ প্রশংসা করে গেলেন। বললেন, ‘‘অনেক গ্র্যান্ড স্ল্যামে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার সব মশলা ওর মধ্যে রয়েছে। তা ছাড়া ওর বয়স তো মাত্র কুড়ি! এই বয়সে যখন গ্র্যান্ড স্ল্যামের সেমিফাইনালে খেলছে ওর প্রতিভা নিয়ে সংশয় থাকা উচিত নয়।’’

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন