লা লিগা ও কোপা দেল রে চ্যাম্পিয়ন হয়েও গত বছর চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতা হয়নি বার্সেলোনার। 

এ বারও বার্সার লা লিগা জয় হয়ে গিয়েছে। কোপা দেল রে ফাইনালেও চলে গিয়েছেন মেসিরা। এই পরিস্থিতিতে বিশ্ব জুড়ে বার্সেলোনা ভক্তদের আবদার, লা লিগা, কোপা দেল রে ও চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতে ট্রফি জয়ের হ্যাটট্রিক চাই।

আজ, বুধবার ক্যাম্প ন্যু-তে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ সেমিফাইনালের প্রথম পর্বের ম্যাচে বার্সেলোনার প্রতিপক্ষ য়ুর্গেন ক্লপের লিভারপুল। যে ম্যাচের আগে সতীর্থদের কাছে লিয়োনেল মেসির মন্তব্য, ‘‘চ্যাম্পিয়ন্স লিগ-সহ ট্রফি জয়ের হ্যাটট্রিকের কাজটা তোমাদের।’’ যা শুনে সতীর্থ লুইস সুয়ারেস বলছেন, ‘‘দলের অধিনায়ক যদি ট্রফির হ্যাটট্রিকের জন্য এত উদগ্রীব থাকে, তা হলে আমাদেরও সেটা সফল করার জন্য সেরাটা দিতে হবে। খেলতে হবে মরসুমের সেরা ম্যাচটা। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সেরা না হয়ে দ্বিতীয় হওয়ার কোনও অর্থ নেই।’’ 

ক্লপের দল কঠিন প্রতিপক্ষ মেনেও বার্সা মিডফিল্ডার ইভান রাকিতিচ বলছেন, ‘‘আপাতত এক পর্ব ভেবেই খেলতে হবে ম্যাচটা। মরসুমের শুরুতে আমাদের অধিনায়ক মেসি ট্রফিটা চাই বলায় চাপ বাড়েনি। বরং দলের সেরা ফুটবলারের দেখিয়ে দেওয়া পথে হেঁটেই ট্রফি আনতে চাই।’’

মেসিকে আটকাতে গেলে কী করা উচিত লিভারপুলের? ম্যাঞ্চেস্টার সিটির প্রাক্তন ডিফেন্ডার টেরি ফেলান বলেছেন, ‘‘মেসিকে আটকাতে গেলে সবার আগে মানসিকতা ঠিক করতে হবে। নিজেদের বলতে হবে, মেসিকে আটকানো সম্ভব। তা হলেই সেটা হবে।’’ ইপিএলের দুটো দল চ্যাম্পিয়ন্স লিগ সেমিফাইনালে খেলছে। ফেলান বলেছেন, ‘‘ইংল্যান্ডের ফুটবলের পক্ষে এটা দারুণ ব্যাপার। বিশেষ করে দু’দলই যদি ফাইনালে ওঠে। তবে লিভারপুলের কাজ খুব কঠিন হবে।’’ 

এই ম্যাচে আক্রমণভাগ বনাম আক্রমণভাগ অর্থাৎ মহম্মদ সালাহ-রবের্তো ফির্মিনো-সাদিয়ো মানে বনাম লিয়োনেল মেসি-লুইস সুয়ারেস-ফিলিপে কুতিনহো দ্বৈরথ দেখতে মুখিয়ে ফুটবলপ্রেমীরা। কিন্তু সেখানেও লিভারপুল রক্ষণের ত্রাস মেসি-সুয়ারেস-কুতিনহো ত্রিভুজ। যা প্রকাশ পেয়েছে লিভারপুলের লেফ্‌ট ব্যাক অ্যান্ড্রু রবার্টসন কথায়। তিনি বলছেন, ‘‘প্রতিদিন যে মানের ফুটবলারদের বিরুদ্ধে খেলতে হয়, বুধবার তার চেয়ে অন্য মানের ফুটবলারের বিরুদ্ধে খেলতে হবে। বিশ্বের সেরা ফুটবলার মেসি। ওর বিরুদ্ধে ভিডিয়ো দেখেও কোনও উপকার হবে কি না বলতে পারছি না। মোদ্দা কথা, মেসির বিরুদ্ধে খেলতে নামলে একটা ভুলও করা চলবে না। এমনিতেই ও সারা মাঠ জুড়ে খেলে। তাই রক্ষণের সঙ্গে মাঝমাঠকেও দায়িত্ব নিতে হবে মেসিকে বোতলবন্দি করতে।’’ দলের মনোবল বাড়াতে লিভারপুল ম্যানেজার ক্লপ বলছেন, ‘‘ক্যাম্প ন্যু ফুটবলের মন্দির নয়। একটা ফুটবল স্টেডিয়াম। বার্সেলোনার বিরুদ্ধে নামলে কেউ ফেভারিট থাকে না। তবে আমরা পাল্টা লড়াই করব। তার পরে দেখা যাক কী হয়।’’ 

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

১২ বছর পরে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে মুখোমুখি হচ্ছে ইউরোপের এই দুই সেরা ক্লাব। বার্সেলোনা ম্যানেজার ভালভার্দে বলছেন, ‘‘ক্লপের দল আগ্রাসী ফুটবল খেলতে চাইবে। ওদের তিন ফরোয়ার্ডের গতি দুর্দান্ত। বল যাতে ওদের কাছে না যায় সেটা আমাদের মাঝমাঠকে দেখতে হবে। দুই অর্ধেই প্রথম ১৫ মিনিট বেশ গুরুত্বপূর্ণ  আমাদের কাছে। ওদের গোলকিপার অ্যালিসনও বেশ ভাল।’’ 

লিভারপুলের পক্ষে সুখবর, মঙ্গলবারই দলের সঙ্গে অনুশীলন করেছেন ফির্মিনো। তাঁকে রেখেই বার্সেলোনা জয়ের অঙ্ক কষছেন ক্লপ। যদিও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন ম্যাচের দিন সকালে।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ সেমিফাইনাল: বার্সেলোনা বনাম লিভারপুল (সোনি টেন ২, রাত ১২.৩০)।