মহেন্দ্র সিংহ ধোনিকে নিয়ে আগামী দিনে ভারতীয় ক্রিকেট দলের কোনও পরিকল্পনা না থাকলে, তাঁর সঙ্গে কথা বলা উচিত নির্বাচকদের। এমনটাই মত প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার বীরেন্দ্র সহবাগের।

বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার পরেই ক্রিকেট মহলে জল্পনা, নিউজ়িল্যান্ডের বিরুদ্ধে সেমিফাইনালেই শেষ ওয়ান ডে ম্যাচ খেলে ফেলেছেন ধোনি। যিনি অনেক আগেই টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন। সহবাগের মতে, অবসর নেবেন কি না সেটা ধোনির ব্যক্তিগত ব্যাপার। কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের আগে দল ঘোষণার আগে অবশ্যই ধোনির সঙ্গে কথা বলা উচিত। 

সহবাগের কথায়, ‘‘কবে ধোনি বুট তুলে রাখবে, সেটা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। কিন্তু এ ক্ষেত্রে নির্বাচকদের উচিত ধোনির সঙ্গে যোগাযোগ করা। ধোনিকে জানিয়ে দেওয়া যে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায় ভারতীয় দলে উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান হিসেবে ধোনিকে তারা ভাবছেন না। পাশাপাশি ধোনি কী পরিকল্পনা নিয়েছেন সেটা তো জানা উচিত।’’

এ প্রসঙ্গে নিজের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা তুলে এনে সহবাগ বলেন, ‘‘আমি কী পরিকল্পনা নিয়েছি, সেটা নির্বাচকরা আগে জানতে চাইবে। সেটাই চাইব। আমার ক্ষেত্রে যেমন সে সময়ের নির্বাচক বিক্রম রাঠৌর আমি বাদ যাওয়ার পরে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানতে চেয়েছিলেন। তার আগে কিছু হয়নি।’’ সঙ্গে যোগ করেন, ‘‘এখন নির্বাচক কমিটির প্রধান এম এস কে প্রসাদ যদি ধোনি বাদ যাওয়ার পরে ওর সঙ্গে কথা বলে, তখন ধোনি কী বলবে? প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে রান করতে চাই। আর নির্বাচকরা পছন্দ হলে দলে নেবে!’’ 

সহবাগের এ কথা শুনে প্রাক্তন নির্বাচক সন্দীপ পাতিল বলেন, ‘‘সচিনের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানার ব্যাপারে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল আমাকে ও রাজিন্দর সিংহ হন্সকে। সহবাগের ক্ষেত্রে একই দায়িত্ব পেয়েছিল বিক্রম রাঠৌর। আমাদের ও জানিয়েছিল, সহবাগের সঙ্গে কথা হয়েছে। কিন্তু যদি সেটা না হয়ে থাকে, তার জন্য দুঃখপ্রকাশ করছি।’’

যদিও প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক কপিল দেব একমত হননি সহবাগের সঙ্গে। তাঁর কথায়, ‘‘কোনও ক্রিকেটার দলে প্রথম অন্তর্ভুক্ত হওয়ার সময়ে কোনও নির্বাচকের যেমন তাঁর সঙ্গে কথা বলার দরকার নেই। তেমনই বাদ যাওয়ার সময়েও তাঁর সঙ্গে কথা বলার দরকার নেই নির্বাচকদের।’’