বেলজিয়াম ৩ (লুকাকু-২, উইটসেল)

রিপাবলিক অফ আয়ারল্যান্ড ০

দ্বিতীয়ার্ধেই পুরো শক্তি দিয়ে ঝাঁপিয়েছিল বেলজিয়াম। প্রথমার্ধের ম্যাচ গোলশূন্যভাবে শেষ হওয়ার পর পরিকল্পনায় তখন শুধু আক্রমণ আক্রমণ আর আক্রমণ। যার ফল দ্বিতীয়ার্ধেই ৩-০ গোলে বাজিমাত বেলজিয়ামের। যেখানে শুরু থেকে কিছুটা রক্ষনাত্মক হয়েই শুরু করেছিলেন হ্যাজার্ড, লুকাকুরা। দুই স্টপারের সামনে দু’জন ব্লকার রেখে এক স্ট্রাইকারে খেলে গোলই তুলতে পারেনি। একই ভাবে এক স্ট্রাইকারে দল সাজিয়েছিল আয়ারল্যান্ডও। দ্বিতীয়ার্ধে তাই পরিকল্পনা বদলে আক্রমণে লোক বাড়িয়েছিলেন বেলজিয়াম কোচ। যদিও শুরু থেকেই ম্যাচের উপর দখল নিতে শুরু করে বেলজিয়াম। লক্ষ্য ছিল প্রতিপক্ষকে মেপে নেওয়া শুরুতেই। আক্রমণের রাস্তা তৈরি করলেও গোলে বল পাঠাতে পারেনি কেউই। বল বেশিরভাগ সময়ই ছিল বেলজিয়ামের পায়ে। বল পজেশনেও এগিয়েছিল বেলজিয়ামই। ২৫ মিনিটে ডি ব্রুয়েনের একটা অনবদ্য প্রচেষ্টা মাঠেই মারা গেল।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই বেলজিয়ামকে গোল করে এগিয়ে দেন লুকাকু। ডি ব্রুয়েন থেকে বল পেয়ে প্রথমে ধরে দ্বিতীয় শটেই গোলে পাঠান লুকাকু। ৬১ মিনিটে দ্বিতীয় গোল উইটসেলের। মিউনিয়ের ক্রস থেকে উইটসেলের হেড চলে যায় গোলে। ২-০ গোলে এগিয়ে যায় বেলজিয়াম। এখান থেকে ফেরার মতো জায়গায় ছিল না আয়ারল্যান্ড। ৭০ মিনিটে শেষ কাজটি করে যান সেই লুকাকু। নিজের নামের পাশে লিখে নেন জোড়া গোল। জিতে লিগ টেবলের দ্বিতীয় স্থানে উঠে এল বেলজিয়াম। 

আরও খবর

টাইব্রেকারে পেরুকে হারিয়ে সেমিফাইনালে কলম্বিয়া