• রাজর্ষি গঙ্গোপাধ্যায়
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

জোড়া সেঞ্চুরির উত্‌সবে কাঁটা অ্যারনের চোট

2
চার উইকেট নিয়ে ইশান্ত স্বস্তি দিলেন কোহলিকে।

Advertisement

সিরিজের প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে জোড়া সেঞ্চুরিতে উড়িয়ে দিলেও নিষ্কণ্টক থাকতে পারল না বিরাট কোহলির ভারত। টিমের বোলিং বিভাগে নতুন সমস্যা হিসেবে দেখা দিল বরুণ অ্যারনের চোট।

এমনিতেই চলতি সিরিজ শুরুর আগে থেকে পেসার-সমস্যায় ভুগছে ভারত। ভুবনেশ্বর কুমারকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে। মহম্মদ শামি তিনিও টিম থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন পায়ে পুরনো যন্ত্রণা বেড়ে যাওয়ায়। চোটের তালিকায় নতুন ঢুকলেন অ্যারন। ডান পায়ের চোট লাগল তাঁর। মাত্র চার ওভার বল করেই তাঁকে মাঠ ছাড়তে হল।

অথচ শ্রীলঙ্কাকে প্রথম দিকে গতি দিয়ে প্রবল ঝামেলায় ফেলছিলেন অ্যারন। নিয়মিত ঘণ্টায় ১৪৫ কিলোমিটারে রাখছিলেন। একটা ডেলিভারি স্পিডোমিটারের কাঁটা ১৫২ ছোঁয়! দু’তিন ওভার করার পরেই দেখা যায় অ্যারন মাঠ ছেড়ে বেরোচ্ছেন। পরে পঞ্চম ওভার করতে নামলেও লাভ হয়নি। মাত্র একটা বল করেই তাঁকে মাঠ ছাড়তে হয়।

যা খবর, তাতে আগামিকাল ঝাড়খণ্ড পেসারের অবস্থা বোঝা যাবে। কিন্তু ভারত যে তাঁকে নিয়ে কোনও ঝুঁকির রাস্তায় যাবে না, সেটা ম্যাচের পর বিরাট কোহলি পরিষ্কার করে দিয়ে গেলেন। বলে গেলেন, “সামনেই বিশ্বকাপ। আমি চাই না ও চোট পেয়ে আবার কয়েক মাসের জন্য ছিটকে যাক।” সোজা হিসেবে, পুরো সিরিজেই অ্যারনকে আর পাওয়া যাবে কি না সন্দেহ। আমদবাদে দ্বিতীয় ওয়ান ডে-তে তিনি অনিশ্চিত তো বটেই।

অন্য দিকে, শিখর ধবন আবার বলে গেলেন রবিবারের সেঞ্চুরি তাঁর আত্মবিশ্বাস অনেকটা বাড়িয়ে দিয়ে গেল। গত কয়েকটা ইনিংসে রান পেলেও সেঞ্চুরি পাচ্ছিলেন না ধবন। “এ রকম ইনিংস খেললে আত্মবিশ্বাস অনেকটাই বেড়ে যায়। প্রথম দিকে এই উইকেটে খেলা সহজ হচ্ছিল না। বল সুইং করছিল,” বলছিলেন ধবন। তাঁর আরও মনে হচ্ছে, বিশ্বকাপের আগে ওপেনিং স্লট নিয়ে এমন প্রতিদ্বন্দ্বিতা বেড়ে যাওয়ায় ভারতের লাভই হবে। “দু’জন ওপেনারই সেঞ্চুরি করে যাচ্ছে, এটা তো খুব বেশি দেখা যায় না। আবার রোহিতও (শর্মা) রান পেয়েছে। আর বিশ্বকাপের আগে যদি নিয়মিত ভাবে ওপেনিংয়ে এমন একটা শক্তিশালী বেস তৈরি করা যায়, তাতে টিমেরই লাভ। আমরা তিন জন ওপেনার, তিন জনই রান করছি। এতে টিমের ভাল।”

কিন্তু রোহিত না রাহানে কার সঙ্গে ওপেনিংয়ে তিনি বেশি স্বচ্ছ্বন্দ?

সরাসরি কোনও উত্তরে ঢুকলেন না দিল্লিওয়ালা। বলে দিলেন, “দু’জনের ব্যাটিং স্টাইল আলাদা। এটুকু বলতে পারি, আমি দু’জনের সঙ্গেই ব্যাট করাটা উপভোগ করি। এ বার কে খেলবে, কে খেলবে না সেটা ঠিক করা টিম ম্যানেজমেন্টের ব্যাপার।”

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন