আনসুমানা ক্রোমার কাছে কলকাতা লিগে প্রথম ম্যাচে বিধ্বস্ত হওয়ার পর এ বার কিবু ভিকুনার প্রতিপক্ষ হিসেবে হাজির ফিলিপ আজা! 

গত বছর লিগে আজার দাপটে কেঁপে গিয়েছিল দুই প্রধান। সাদা-কালো জার্সিতে ইস্টবেঙ্গল ও মোহনবাগানের বিরুদ্ধে গোল করেছিলেন ঘানার এই স্ট্রাইকার। আটটি টুনার্মেন্ট ৪৬টি গোল করা সেই আজা মঙ্গলবার সই করলেন কাস্টমসে। যার আজ, বুধবার দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে নামছে মোহনবাগান।

‘‘কলকাতা লিগে সব প্রতিপক্ষই কঠিন। প্রত্যেক দলের বিদেশিরা বেশ ভাল। কাস্টমসের খেলা ভিডিয়োতে দেখেছি। ওদের আফ্রিকান ফুটবলাররা বেশ ভাল।’’ মঙ্গলবার সকালে সবুজ-মেরুনের স্প্যানিশ কোচ যখন প্রতিপক্ষের শক্তিকে সমীহ দেখাচ্ছেন, তখনও জানতেন না আজার মতো চতুর ফুটবলারকে সই করিয়ে শক্তিশালী হয়ে মাঠে নামবে কাস্টমস। কাগজপত্রে সমস্যা থাকায় দেশে ফিরে গিয়েছিলেন আজা। ফের নতুন ভিসা নিয়ে কলকাতায় খেলতে এসেছেন। কাস্টমসের কর্তারা তাঁর পাশে দাঁড়ানোয় সমস্যা হয়নি সই করতে। আজার সই পর্ব শেষ হতে প্রায় তিন ঘণ্টা লেগে যায়। কাস্টমসের কোচ রাজীব দে  বললেন, ‘‘আজাকে দেখে মনে হয়েছে, দেশে গিয়েও অনুশীলনের মধ্যে ছিল। কলকাতায় এসে দু’সপ্তাহ অনুশীলন করেছে। তবে শুরুতে নামাবো কি না ঠিক করিনি।’’ 

ডুরান্ড সেমিফাইনালে ইতিমধ্যেই পৌঁছে গিয়েছেন সালভা চামোরোরা। কিন্তু কলকাতা লিগের প্রথম ম্যাচে ক্রোমার মতো অভিজ্ঞ ফুটবলারের দৌরাত্ম্যে পিয়ারলেসের কাছে বিশ্রী ভাবে হারে মোহনবাগান। সেখানে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য কিবু যে মরিয়া, সেটা বোঝা যায় তাঁর কথাতেই, ‘‘ডুরান্ড কাপ মাথা থেকে সরিয়ে দিয়েছি। এখন আমাদের লক্ষ্য কলকাতা লিগ। বৃষ্টি এবং মাঠের যা অবস্থা, তাতে যে কোনও ম্যাচ বার করা কঠিন।’’

লালরাম চুলোভা আজ নামবেন কি না তা অবশ্য বোঝা যায়নি মঙ্গলবার সকালের অনুশীলন দেখে। কিবু বলে দিলেন, ‘‘সব ফুটবলারই সুস্থ এবং তৈরি। ম্যাচটা জিততে চাই।’’ অনুশীলন দেখে মনে হয়েছে, সালভা চামোরো, জোসেবা বেইতিয়া ও ফ্রান মোরান্তেকে প্রথম একাদশে রাখা হবে। চামোরোর সঙ্গে শুরুতে ভি পি সুহের হয়তো থাকবেন। 

কাস্টমসে গতবারের তিন বিদেশি এবং বেশিরভাগ ফুটবলার খেললেও প্রথম দুই ম্যাচে মাত্র এক পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে রাজীব দে-র দল। একটি ড্র, একটি হার। আজা আসার পরে গোল খরা কাটে কি না, সেটাই দেখার।

কলকাতা লিগ: মোহনবাগান বনাম কাস্টমস (মোহনবাগান বিকেল ৩.০০)।