ভারতীয় ক্রিকেট দলের কোচ বাছাইয়ের জন্য কপিল দেবদের নতুন কমিটিকে সবুজ সঙ্কেত দিল সিওএ। চলতি মাসের মাঝামাঝি সময়ে জানিয়ে দেওয়া হবে বিরাট কোহালিদের কোচ কে হতে চলেছেন। সোমবার সংবাদ সংস্থা পিটিআই-কে এ কথা জানিয়েছেন সিওএ প্রধান বিনোদ রাই। 

নতুন প্যানেলে কপিল দেবের পাশাপাশি রয়েছেন অংশুমান গায়কোয়াড় ও শান্তা রঙ্গস্বামী। তাঁদের সামনে এ বার বড় দায়িত্ব। রাই বলেছেন, ‘‘আমরা সিএসি নিয়ে আলোচনা করেছি। এই সিদ্ধান্ত নিতে কোনও সমস্যা হয়নি।’’ সঙ্গে যোগ করেন, ‘‘কোচ বাছাই প্রকল্পে সিএসি-র সিদ্ধান্তই হবে চরম। যাঁরা আবেদন করেছেন, প্রত্যেককে ইন্টারভিউ-তে ডাকা সম্ভব নয়। তালিকার মধ্যে থেকে সেরা কয়েকটি নাম বেছে নিতে হবে। তাঁদের মধ্যে থেকেই ইন্টারভিউ হবে।’’ কিন্তু কোচ হিসেবে যদি ফের রবি শাস্ত্রীকে বাছা হয়, সে ক্ষেত্রে ইন্টারভিউ ব্যবস্থা হয়তো রাখবে না সিএসি। 

যদিও সিওএ-র সদস্য ডায়ানা এডুলজি সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে সংবাদ সংস্থা পিটিআই-কে বলেছেন, ‘‘এই রায়ে আমার কোনও সম্মতি ছিল না। তিন জনের বৈঠকে আমি ১-২ ভোটে হেরেছি। বিনোদ ও রবি (থোড়গে) প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিয়েছে। আমি বরাবরই বলে এসেছি অ্যাড-হক কমিটি কোচ বাছাই করতে পারে না। বোর্ডের গঠনতন্ত্রের বিরুদ্ধে এই সিদ্ধান্ত।’’ যদিও এডুলজির বক্তব্য ভাল ভাবে নিতে পারেনি বোর্ড। এ দিন বোর্ডের জনৈক আধিকারিক বলেছেন, ‘‘সিওএ-র শেষ বৈঠকে তো সদস্যরা নতুন প্যানেল গঠন করতে চাইছিলেন না। হতে পারে কমিটির সদস্যদের কারও রবি শাস্ত্রীকে কোচ হিসেবে রেখে দেওয়ার বিষয়ে অনীহা রয়েছে।’’ বর‌ং প্রাক্তন বোর্ড প্রেসিডেন্ট নারায়ণস্বামী শ্রীনিবাসনের নাম না করে ওই আধিকারিক বলেছেন, ‘‘এখন তো সকলেই এটা জেনে গিয়েছেন, কোনও এক প্রাক্তন ক্ষমতাধর বোর্ড প্রেসিডেন্ট নতুন ভাবে প্রভাব বিস্তার করতে চাইছেন। ফলে অন্য কিছু নিয়ে এই মুহূর্তে আমরা ভাবতে চাই না।’’

এ দিন বিনোদ রাই আবারও জানিয়েছেন, লোঢা কমিটির সুপারিশ পুরোপুরি না মানলে সেই সংস্থাকে ভারতীয় বোর্ডের নির্বাচনে ভোট দিতে দেওয়া হবে না।