দু’বছর আগে ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে শেষ বার পাকিস্তানের হয়ে ওয়ান ডে ম্যাচে খেলেছিলেন। কিন্তু খারাপ পারফরম্যান্স ও চোটের কারণে দল থেকে বাদ পড়ে গিয়েছিলেন পাক পেসার ওয়াহাব রিয়াজ়। ফের বিশ্বকাপের জন্য পাক দলে ফিরে নজর কাড়তে আশাবাদী তিনি। বলছেন, ইংল্যান্ডে টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতা কাজে লাগবে।

সেই সঙ্গে শুনিয়েছেন তাঁর দেখা সাম্প্রতিক এক স্বপ্নের কথাও। যা সফল হয়েছে বিশ্বকাপের দলে তিনি ডাক পাওয়ায়। এমনই মত ওয়াহাবের। মঙ্গলবার লাহৌরে সাংবাদিকদের ওয়াহাব এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘কয়েক দিন আগে এটা স্বপ্ন দেখেছিলাম। যেখানে পাকিস্তানের মুখ্য নির্বাচক ইনজ়ামাম-উল-হক, বিশ্বকাপে আমাকে সুযোগ দিয়ে বলেন, এটাই তোমার শেষ সুযোগ। সেই স্বপ্নটা সত্যি হওয়ায় দারুণ লাগছে। মনে পড়ছে বাবার কথা। কারণ তিনি আজ প্রয়াত। বাবা সব সময় চাইতেন, পাকিস্তানের হয়ে সব চেয়ে বেশি বার বিশ্বকাপে প্রতিনিধিত্ব যেন আমি করতে পারি।’’

‘খোয়াব’ সফল হওয়ার পরে জীবনের তৃতীয় বিশ্বকাপে পাকিস্তানের হয়ে বোলিং বিভাগে বড় দায়িত্ব নিতে মুখিয়ে ওয়াহাব। বলছেন, ‘‘এ বার বিশ্বকাপ দলে নির্বাচিত হওয়ায় একটা বড় দায়িত্ব সামলাতে হবে। কারণ, আমার দলে সুযোগ পাওয়ার একটা বড় কারণ অভিজ্ঞতা। ইংল্যান্ডে খুব বেশি ওয়ান ডে ম্যাচ খেলিনি। কিন্তু সেখানে টেস্ট ম্যাচে খেলার অভিজ্ঞতা কাজে লাগবে। ওখানকার পরিবেশ ও পিচ সম্পর্কেও ধারণা রয়েছে।’’

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

বিশ্বকাপের আগে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজে ৪-০ হেরেছে পাকিস্তান। তার পরেই সোমবার বিশ্বকাপের দল ঘোষণা করে পাক বোর্ড। দলের বোলিংয়ের হাল ফেরাতে বিশ্বকাপে দলে রাখা হয়েছে, দুই পেসার ওয়াহাব রিয়াজ় ও মহম্মদ আমিরকে। বিশ্বকাপে দু’জনেই ভাল ফল করবে, এ ব্যাপারে আশাবাদী পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের মুখ্য নির্বাচক ইনজ়ামাম-উল-হক। 

আত্মবিশ্বাসী ওয়াহাবও বলছেন, ‘‘আমি নিশ্চিত, দলের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারব। দল যে কাজ আমাকে দেবে, সেটাও মাঠে নেমে ঠিকঠাক করে আসা যাবে। কারণ, ঘরোয়া প্রতিযোগিতায় খেলে এই মুহূর্তে শারীরিক ও মানসিক ভাবে আমি এখন অনেক পরিণত বোলার।’’

আমির দলের সঙ্গে ইংল্যান্ডে থাকলেও ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজে একটি ম্যাচেও খেলানো হয়নি তাঁকে। অন্য দিকে, বিশ্বকাপের সম্ভাব্য ২৩ জনের পাক দলেই ছিলেন না ওয়াহাব। সেখানে তাঁর এই অন্তর্ভুক্তিতে অবাক পাকিস্তানের ক্রিকেটপ্রেমীদের একাংশ। তবে বেশির ভাগেরই মতামত, ওয়াহাব দলে ফেরায় বোলিং আক্রমণ জোরদার হবে পাকিস্তানের।

ওয়াহাব বলছেন, ‘‘বিশ্বকাপের সময় ইংল্যান্ডের পিচ খটখটে থাকায় রিভার্স সুইংয়ের সম্ভাবনা থাকবে। তবে এই ধরনের ব্যাটসম্যান সহায়ক পিচে ফিল্ডিংও ভাল হতে হবে। তাতে বোলাররা সহায়তা পায়।’’ সঙ্গে যোগ করেন, ‘‘সদ্য সমাপ্ত ইংল্যান্ড সফরে আমাদের বোলাররা সে ভাবে নজর কাড়তে ব্যর্থ। কিন্তু খুঁটিয়ে ম্যাচগুলোকে কাটাছেঁড়া করলে দেখা যাবে পাকিস্তানের ফিল্ডিং প্রত্যাশা মতো হয়নি। বিশ্বকাপে সেই ফিল্ডিং দুর্বলতা কাটিয়ে উঠতে হবে আমাদের।