• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

সমালোচনার প্রভাব পড়ে না, বলছেন সিন্ধু

Sindhu
লক্ষ্য: অলিম্পিক্স পদক এখন পাখির চোখ সিন্ধুর। টুইটার

বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরে তাঁর ছন্দে না থাকা নিয়ে সমালোচনা কম হয়নি। তবে পি ভি সিন্ধু বলে দিচ্ছেন, সমালোচনা বা প্রত্যাশার চাপ কিছুই তাঁর মাথায় নেই এখন। লক্ষ্য শুধু একটাই— দ্বিতীয় অলিম্পিক্স পদক।

অগস্টে সুইৎজ়ারল্যান্ডের বাজ়েলে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়ে ইতিহাস গড়েছিলেন সিন্ধু। কিন্তু এর পরে একের পরে এক প্রতিযোগিতায় তিনি গোড়ার দিকে ছিটকে গিয়েছেন। যার মধ্যে আছে গত মাসে বিশ্ব টুর ফাইনালসও। তবে সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ‘‘বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ আমার জন্য দারুণ গিয়েছে। কিন্তু তার পরে অনেক প্রতিযোগিতাতেই প্রথম রাউন্ডে হেরেছি। তাতেও আমি ইতিবাচকই আছি। সব ম্যাচ জেতা তো সম্ভব নয়। কখনও হয়তো দারুণ খেলছি, কখনও ভুল করে ফেলছি।’’ সিন্ধু সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘‘এই সব ভুল থেকে আমি অনেক শিখেছি। আমার জন্য ইতিবাচক থাকা এবং শক্তিশালী ভাবে ঘুরে দাঁড়ানোটা জরুরি।’’

ভুল শুধরোতে তিনি যে টেকনিকে জোর দিচ্ছেন সেটাও জানান সিন্ধু। ‘‘নিশ্চিত ভাবে আমার উপর অনেক প্রত্যাশার চাপ থাকবে। তবে চাপ এবং সমালোচনা আমার উপর প্রভাব ফেলে না। কারণ মানুষ সব সময়ই চায় যেখানেই আমি খেলি না কেন, জিতি। আমার সব চেয়ে বড় লক্ষ্য এখন অলিম্পিক্স। টেকনিক ও দক্ষতা আরও উন্নত করতে প্রচুর পরিশ্রম করছি। সব পরিকল্পনাই ছকা রয়েছে। আশা করি সব পরিকল্পনা কাজে লাগাতে পারব,’’ বলেছেন আত্মবিশ্বাসী সিন্ধু, যাঁকে এর পরে প্রিমিয়ার ব্যাডমিন্টন লিগে খেলতে দেখা যাবে।

টোকিয়ো অলিম্পিক্সে পদক জিততে পারলে সুশীল কুমারের নজির স্পর্শ করবেন সিন্ধু। তারকা কুস্তিগির সুশীলের এক মাত্র ভারতীয় খেলোয়াড় হিসেবে অলিম্পিক্সে দুটি পদক রয়েছে। সিন্ধুর মাথায়ও সেটা রয়েছে। তিনি বলেছেন, ‘‘সুশীল দেশকে অনেক সম্মান এনে দিয়েছেন। আশা করি আমিও টোকিয়োয় তা পারব। অন্য কারও কৃতিত্ব স্পর্শ করার ব্যাপারটা আমার মাথায় থাকে না। আমার কাছে পুরো পদ্ধতিটাই হল ধাপে ধাপে এগোনো। তাই আমার মনে হয়, নিজের সেরাটা দিতে হলে আমায় কঠোর পরিশ্রম করতে হবে।’’ নতুন বছরে তাঁর কাছে সব প্রতিযোগিতাই গুরুত্বপূর্ণ জানিয়ে সিন্ধু বলেন, ‘‘বছরের শুরুতেই জানুয়ারিতে মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়ায় খেলতে হবে। তার পরে আরও কয়েকটা অলিম্পিক্স যোগ্যতা অর্জন পর্বের প্রতিযোগিতা রয়েছে। সবই খুব গুরুত্বপূর্ণ।’’

সাত মাস পরে অলিম্পিক্সের চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করবে হায়দরাবাদি তারকার জন্য। তার আগে নতুন মরসুমের শুরুতেই ভারতীয় ব্যাডমিন্টন ভক্তদের নজর থাকবে প্রিমিয়ার ব্যাডমিন্টন লিগের উপরে। ‘‘এ বছর পিবিএল শুরু হওয়ার দিকে তাকিয়ে রয়েছি। জানুয়ারিতে প্রতিযোগিতা হবে। সব দলই খুব শক্তিশালী। এটা বলা যাবে না যে একটা দল শক্তিশালী আর একটা দুর্বল,’’ বলেন সিন্ধু। যিনি এ বারও হায়দরাবাদ হান্টার্সের হয়ে নামবেন পিবিএলে। হান্টার্স নিলামে ৭৭ লক্ষ টাকায় সিন্ধুকে ধরে রেখে দেয়। এ বার এত ব্যস্ত সূচিতে পিবিএলেও নামার সিদ্ধান্ত কতটা কঠিন ছিল, জানতে চাইলে সিন্ধু বলেছেন, ‘‘আমার কাছে এটা শুধু আরও একটা চ্যালেঞ্জ। পিবিএল উপভোগ করতে চাই।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন