তাঁর কমনওয়েলথ গেমসে যাওয়া নিয়েই এক সময় সঙ্কট তৈরি হয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত গেলেন এবং সোনা জিতলেন। তিনি সুশীল কুমার। যাঁর ঝুলিতে রয়েছে জোড়া অলিম্পিক পদক। তাঁর কমনওয়েলথ যাওয়া ভেস্তে যাওয়াটা দেশেরই ক্ষতি। শেষ পর্যন্ত তেমনটা হয়নি। কিন্তু সব সমস্যা কাটিয়ে তিনি গোল্ড কোস্টে পৌঁছলেন এবং সোনা জিতলেন ৭৪ কেজি ফ্রি স্টাইল কুস্তিতে।

এই নিয়ে পর পর তিন বছর। শুধু পদক নয়, সোনাই জিতলেন সুশীল কুমার। ২০১০ দিল্লি, ২০১৫ গ্লাসগো কমনওয়েলথের পর ২০১৮ গোল্ড কোস্ট। ২০১৮ কমনওয়েলথ গেমসের ট্রায়াল প্রবল গন্ডোগোলের মধ্যে শেষ হয়েছিল। প্রতিপক্ষ প্রবীন রানার সঙ্গে সুশীল কুমারের সমর্থকদের বচসা বড় জায়গায় চলে গিয়েছিল। সুশীল এ দিন সোনা জিতে বলেন, ‘‘আমি যে দিন কুস্তি শুরু করেছি সে দিন থেকে শুধু চেয়েছি দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে। আমি সব সময় আমার ১০০ শতাংশ দিয়েছি যখন ফিট থেকেছি। আমি মানুষের মানসিকতার পরিবর্তন করতে পারব না। তবে আমার কারো সামনে কিছু প্রমাণ করারও নেই।’’

সুশীলের প্রথম কমনওয়েলথ পদক এসেছিল দেশের মাটিতেই ২০১০ সালে। ৬৬ কেজি ফ্রিস্টাইল বিভাগে। গ্লাসগোতে তিনি সোনা জেতেন ৭৪ কেজি বিভাগে। সুশীলই একমাত্র ভারতীয় যাঁর যিনি অলিম্পিক্সের ব্যাক্তিগত বিভাগে পদক জিতেছিলেন। ২০০৮ বেজিং অলিম্পিক্সে ব্রোঞ্জ ও ২০১২ লন্ডন অলিম্পিক্সে রুপো জেতেন তিনি। সুশীল এ দিন বলেন, ‘‘আমার দুটো অলিম্পিক্স পদক রয়েছে।আরও কারও সামনে কিছু প্রমাণ করার নেই। একটাই না হওয়া স্বপ্ন রয়েছে, লন্ডনে যার প্রায় কাছে পৌঁছে গিয়েছিলাম। আমি চাই দেশকে অলিম্পিক্সে সোনা দিতে।’’

আরও পড়ুন
ব্যাডমিন্টন র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে ভারতের কিদাম্বি শ্রীকান্ত

দিনের শেষে পদক তালিকায় তিন নম্বরেই থাকল ভারত। সোনার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৪। সাতটি রুপো ও ১০টি ব্রোঞ্জ। মোট ৩১টি পদক জিতে তৃতীয় স্থানেই থেকে গেল ভারত।