অভিনব ঘটনার সাক্ষী হল ভারতীয় ফুটবল। বিমানবন্দরের লাউঞ্জে বসেই ভিডিয়ো কলে টেকনিক্যাল ডিরেক্টর (টিডি) পদে ইন্টারভিউ দিলেন রোমানিয়ার দোরু ইসাক!  

এশিয়ান কাপের মূলপর্বে বাহরিনের বিরুদ্ধে হারের পরেই জাতীয় দলের কোচের পদ থেকে ইস্তফা দেন স্টিভেন কনস্ট্যান্টাইন। টিডির পদ থেকে স্কট ও’ডনেল সরে যান ২০১৪ সালে। তার পর থেকেই অন্তর্বর্তীকালীন টিডি হিসেবে স্যাভিয়ো মেদেইরা দায়িত্ব সামলাচ্ছিলেন। স্টিভনের পদত্যাগের পরেই ফেডারেশনের তরফে নতুন কোচ ও টিডি নিয়োগের জন্য বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়। কোচের পদে আবেদন করেছিলেন ২৭০ জন। এর মধ্যে থেকে প্রাথমিক ভাবে বেছে নেওয়া হয়েছিল ৩৫ জনকে। পরে তা কমিয়ে ১৫ জনের তালিকা তৈরি করা হয়। টিডির পদে ইন্টারভিউয়ের জন্য প্রাথমিক তালিকায় চার জনকে নির্বাচিত করা হয়েছিল। স্কটের নামও ছিল তালিকায়। বাকি তিন জন হলেন দোরু, পর্তুগালের জর্জে কাস্তেলো এবং জর্জিয়ার গাইয়োস দারসাজ়ে। গত ১৫ এপ্রিল টেকনিক্যাল কমিটির বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় টিডি পদে ইন্টারভিউয়ের জন্য ডাকা হবে দোরু, কাস্তেলো ও গাইয়োসকে। ডাকা হবে না স্কটকে। যে-হেতু অতীতে এই পদে কাজ করেছেন। সোমবার ছিল ইন্টারভিউয়ের দিন। একমাত্র দোরু নয়াদিল্লিতে এসে ইন্টারভিউ দিতে রাজি ছিলেন। বাকি দু’জন ভিডিয়ো কলের মাধ্যমে ইন্টারভিউ দেওয়ার 

কথা জানিয়েছিলেন। 

সোমবার সকালেই নয়াদিল্লি পৌঁছে গিয়েছিলেন দোরু। কিন্তু ভিসা সমস্যায় বিমানবন্দরের বাইরে যাওয়ার অনুমতি পাননি। বৈঠকের পরে টেকনিক্যাল কমিটির চেয়ারম্যান শ্যাম থাপা ফোনে বললেন, ‘‘ভিসা সমস্যায় দোরুর বিমানবন্দরে আটকে থাকার ঘটনাটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। তবে তার জন্য ইন্টারভিউ নিতে কোনও সমস্যা হয়নি। বাকি দু’জনের মতো ওঁর সঙ্গেও ভিডিয়ো কলে দীর্ঘ ক্ষণ আলোচনা হয়েছে।’’ কী ধরনের প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছিলেন আবেদনকারীরা? শ্যাম থাপা বললেন, ‘‘ভারতীয় ফুটবলের উন্নতির জন্য ওঁদের কী কী পরিকল্পনা রয়েছে, তা বিস্তারিত ভাবে জানিয়েছেন।’’ 

ইন্টারভিউ পর্ব মিটলেও টিডির নাম অবশ্য ঘোষণা করা হয়নি। ফেডারেশনের অন্দরমহলের খবর, এই মুহূর্তে কিছুটা এগিয়ে রয়েছেন ৫৬ বছর বয়সি দোরু-ই। জাপানের নাগোয়া গ্রামপাস এইটে আর্সেন ওয়েঙ্গারের সহকারী ছিলেন তিনি। এ ছাড়াও কাজ করেছেন কিংবদন্তি কোচ বোরা মিলুটিনোভিচের সঙ্গে। কার্লোস কুইরোজের সহকারীও ছিলেন তিনি। 

ক্রীড়া বিজ্ঞানে পিএইচডি ৬২ বছর বয়সি কাস্তেলো স্বন গোরান এরিকসন, মানো মেনেজ়েস, কুইরোজের মতো পৃথিবী বিখ্যাত  ম্যানেজারের সহকারী ছিলেন। 

প্রশ্ন উঠছে, নতুন টিডির নাম কেন ঘোষণা করা হল না? সূত্রের খবর, আর্থিক ব্যাপারটা চূড়ান্ত না হওয়া পর্যন্ত টিডির নাম ঘোষণার ঝুঁকি নিতে চাইছেন না ফেডারেশন কর্তারা। তাঁদের যুক্তি, ‘‘টিডি হিসেবে নাম ঘোষণা করার পরে যদি তিনি আমাদের আর্থিক প্রস্তাব না মানেন, তখন সমস্যা হবে। ফেডারেশনেরও বদনাম হবে। তাই সব কিছু চূড়ান্ত করে দু’-এক দিনের মধ্যে টিডির নাম ঘোষণা হবে।’’

আশ্চর্যজনক ভাবে কোচ নির্বাচন নিয়ে ইতিবাচক কোনও আলোচনা হয়নি এ দিনের বৈঠকে। তবে ফের দশ জনের তালিকা তৈরি করা হয়েছে।