শেষ তিন ম্যাচে পাঁচ গোল খেয়েছে মোহনবাগান। আর তাতেই মেজাজ হারাচ্ছেন কিবু ভিকুনা। সাধারণত শান্ত স্বভাবের স্প্যানিশ কোচ যা কখনও করেন না শুক্রবারের সকালের অনুশীলনে তাই করলেন। কিবু এ দিনে অনুশীলনে রক্ষণ সংগঠনের উপর জোর দিয়েছিলেন। আর সেখানে আশুতোষ মেহতা, ফ্রান মোরান্তা, গুরজিন্দর সিংহেরা যখনই ভুল করেছেন, তখনই মেজাজ হারিয়ে চিৎকার করেছেন। বোঝাই গিয়েছে, মরসুমের শুরুতে ডুরান্ডের সেমিফাইনালে উঠে গেলেও কলকাতা লিগের  ভরাডুবিতে চাপে পড়ে গিয়েছেন।

আজ, শনিবার ডুরান্ড কাপের গ্রুপ লিগের শেষ ম্যাচ খেলতে নামছে কিবুর মোহনবাগান। প্রতিপক্ষ ভারতীয় নৌসেনার দল। শেষ চারে চলে যাওয়ায় এই ম্যাচের কোনও গুরুত্ব নেই মোহনবাগানের কাছে। নৌসেনার দলকে মহমেডান ছয় গোল দিয়েছিল। সেটা মাথায় রেখেই দলে কিছু পরিবর্তন আনতে চাইছেন কিবু। লালরাম চুলোভা-সহ কয়েক জন ফুটবলারকে এ দিন প্রথমে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে দেশে বেশ বিরক্তি প্রকাশ করেন সালভা চামোরোদের কোচ। বলে দিনে, ‘‘প্রতিদিন কী বলব? সবই তো সবার জানা।’’ পরে অবশ্য তিনি বলে দেন, ‘‘শনিবারের ম্যাচের কোনও গুরুত্ব আমার কাছে নেই। আমি সেমিফাইনালের জন্য প্রস্তুত হচ্ছি। কিছু ফুটবলারকে বিশ্রাম দেওয়ার কথা ভাবছি।’’

চার বিদেশির মধ্যে জোসিবা বেইতিয়ার চোট। তাঁর গোড়ালিতে লেগেছে। স্প্যানিশ মিডিয়ো এ দিন মাঠের বাইরে পায়ে আইসপ্যাক বেঁধে বসেছিলেন। ফলে মোরান্তা, চামোরো এবং ফ্রান গন্সালেসকে নামানোর কথা ভাবছেন কিবু। বেইতিয়াই সাধারণত সেটপিস নেন। এ দিন তাঁকে সেটা নিতে দেখা যায়নি। কিবু ক্লাব কর্তাদের জানিয়েছেন, মোহনবাগান মাঠের যা অবস্থা, তাতে ভাল খেলা মুশকিল। যুবভারতীতে খেলা হলে সমস্যা নেই। এবং দেখা যাচ্ছে, ডুরান্ডের দুটি ম্যাচই জিতেছে মোহনবাগান। ক্লাব সূত্রের খবর, ডুরান্ডের দুটি ম্যাচ জিতলেও লিগের দুটি ম্যাচে নিজেদের মাঠে সমস্যায় পড়েছেন চামোরোরা। ডুরান্ডে অবশ্য যুবভারতীতে মহমেডানকে সহজেই হারিয়েছিল  মোহনবাগান। নিজেদের মাঠে এটিকের বিরুদ্ধে জিততে সমস্যায় পড়তে হয়েছিল। আজ যুবভারতীতে যাদের বিরুদ্ধে খেলা সেই নৌসেনার দলটা খারাপ নয়। সব চেয়ে বড় কথা, শারীরিকভাবে দারুণ।

ডুরান্ড কাপ

মোহনবাগান: ভারতীয় নৌসেনা (যুবভারতী, সন্ধে ৬-০০)।