পাটিয়ালায় অনুষ্ঠিত ইন্ডিয়ান গ্রঁ প্রি ফাইভ প্রতিযোগিতার ১০০ মিটারে সোনা জিতলেন দেশের দ্রুততম মহিলা অ্যাথলিট দ্যুতি চন্দ। সময় করলেন ১১.৪২ সেকেন্ড। তবে সহজ হয়নি দ্যুতির জয়। দ্বিতীয় (১১.৫৩ সেকেন্ড) তামিলনাড়ুর অ্যাথলিট অর্চনা সুসিন্ত্রন। এই ইভেন্টে ব্রোঞ্জ পঞ্জাবের স্প্রিন্টার মনবীর কৌরের। সময় ১২.২৮ সেকেন্ড।

বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে যোগ্যতা অর্জনের জন্য ইউরোপে আয়ারল্যান্ড ও জার্মানিতে দু’টি প্রতিযোগিতায় নামার কথা ছিল দ্যুতির। কিন্তু ভিসা সমস্যা হওয়ায় সেখানে নামতে পারেননি। তাই প্রস্তুতির জন্য পাটিয়ালা সাইতে তিনি এসেছেন ইন্ডিয়ান গ্রঁ প্রি ফাইভ প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে যোগ্যতা অর্জন করতে হলে দ্যুতিকে ১০০ মিটারে সময় করতে হবে ১১.২৪ সেকেন্ড। টোকিয়ো অলিম্পিক্সে যোগ্যতা অর্জন করতে হলে দ্যুতিকে সময় করতে হবে ১১.১৫ সেকেন্ড। এই ইভেন্টে দ্যুতির সেরা সময় ১১.২৬ সেকেন্ড। যা তিনি করেন দোহায় এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে।

তবে ২০০ মিটারে তাঁর জীবনের সেরা সময় (২৩.১৮ সেকেন্ড) করেন অর্চনা। সোনাও জেতেন তিনি। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের জন্য তাঁকে সময় করতে হত ২৩.০২ সেকেন্ড। এই ইভেন্টে ২০১৭ সালের শুরুতে তাঁর সময় ছিল ২৪.০৩ সেকেন্ড। সেখানে অনেকটাই উন্নতি করেছেন তিনি।

ডিসকাস থ্রো বিভাগে রুপো পেয়েছেন বাংলার অ্যাথলিট সুরভি বিশ্বাস। তিনি ছোড়েন ৫১.৪২ মিটার। এই ইভেন্টে সোনা জিতেছেন পাটিয়ালার মেয়ে নবজিৎ কৌর ধিলোঁ। তিনি ছোড়েন ৫২.৪৪ মিটার। পুরুষদের জ্যাভলিনে ৭৬.২৮ মিটার ছুড়ে রুপো পঞ্জাবের দাবিন্দার সিংহ কাং-এর। সোনা হরিয়ানার অ্যাথলিট রাজিন্দর সিংহের। ছোঁড়েন ৭৯ মিটার। 

তবে এ দিনের সেরা ঘটনা লং জাম্পে এম শ্রীশঙ্করের প্রত্যাবর্তন। ছয় মাস পরে ট্র্যাকে ফিরে তিনি লাফালেন ৮ মিটার। গত মার্চে কিরঘিজস্তানে তিনি এই ইভেন্টে সময় করেছিলেন, ৭.৯৭ মিটার। সোনা জিতে বলেন, ‘‘এই ইভেন্টে ছয় মাস নামতে পারিনি চোটের কারণে। এই পারফরম্যান্স আত্মবিশ্বাস বাড়াচ্ছে। আগামী দিনে আরও ভাল করতে হবে।’’