লাজং এফসি-র বিরুদ্ধে শিলংয়ে ম্যাচ পড়লেই অদ্ভুত ভাবে বদলে যায় ইস্টবেঙ্গল অন্দরমহলের আবহ!

প্রথমত, আই লিগের ইতিহাসে এক বারের বেশি জিততে না পারার হতাশা। দ্বিতীয়ত, শিলংয়ের ঠান্ডা আবহাওয়ায় প্রায় পাঁচ হাজার ফিট উচ্চতায় কম অক্সিজেনে খেলার আতঙ্ক। এ বার তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে উইলিস প্লাজা-ওয়েডসন আনসেলমের মতো দুই বিদেশির না থাকা। এবং, উল্টো দিকে আই লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার দৌড়ে শীর্ষে থাকা লাজং স্ট্রাইকার পিয়েরিক দিপান্দার দুরন্ত ফর্ম।

ট্রেভর জেমস মর্গ্যান ইস্টবেঙ্গলের কোচ হিসেবে এই মুহূর্তে প্রথম বার লাজং-কে হারানো ছাড়া কিছুই ভাবতে চাইছেন না। এ দিন বিকেলে শিলং থেকে ফোনে তিনি বললেন, ‘‘আবহাওয়ার সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার জন্যই তো এক দিন বাড়তি প্র্যাক্টিস করিয়েছি ফুটবলারদের।’’ সঙ্গে যোগ করেন, ‘‘লাজংয়ের সেট-পিস ভয়ঙ্কর। প্রথম লেগে আমরা ওদের খেলতে দিয়ে ভুল করেছিলাম। তার পুনরাবৃত্তি করতে চাই না এ বার শুরু থেকেই আক্রমণের ঝড় তুলতে চাই।’’

কিন্তু মর্গ্যানের স্ট্র্যাটেজি ভেস্তে দেওয়ার পরিকল্পনা সম্পূর্ণ লাজং কোচ থাংবোই সিংটোর। রক্ষণের শক্তি বাড়াতে ইস্টবেঙ্গল ম্যাচের আগেই সই করিয়েছেন আইবর খনজি-কে। সিংটো বলেছেন, ‘‘ইস্টবেঙ্গল আই লিগের অন্যতম সেরা শক্তিশালী দল। আমাদের প্রধান লক্ষ্যই হচ্ছে ওদের গোল করতে না দেওয়া।’’

আজ

ইস্টবেঙ্গল বনাম লাজং এফসি (শিলং, বিকেল ৪.৩৫)।

মোহনবাগান বনাম চার্চিল ব্রাদার্স (ভাস্কো, সন্ধে ৭.০৫)।

দু’টো ম্যাচই সরাসরি সম্প্রচার টেন টু চ্যানেলে।