বিশ্বকাপ দলে সুযোগ দেওয়া হয়নি জশ হেজলউডকে। তা নিয়ে ক্ষোভও প্রকাশ করেছিলেন অস্ট্রেলীয় পেসার। কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার তাঁকে আশ্বাস দিয়ে বলেছিলেন, ‘‘অ্যাশেজে তুমিই অস্ট্রেলিয়ার মূল বোলার।’’ শুক্রবার হেডিংলেতে তৃতীয় টেস্টের দ্বিতীয় দিন হেজলউডের বিধ্বংসী বোলিংয়েই বেসামাল ইংল্যান্ড। অস্ট্রেলিয়ার ১৭৯ রানের জবাবে জো রুটের দল অলআউট ৬৭ রানে। শেষ ৭১ বছরে এটাই ঘরের মাঠে অ্যাশেজের সর্বনিম্ন স্কোর। দিনের শেষে ছয় উইকেট হারিয়ে ১৭১ রান অস্ট্রেলিয়ার। ২৮৩ রানে এগিয়ে। 

হেজলউড, প্যাট কামিন্স, জেমস প্যাটিনসন ত্রয়ীর সামনে দাঁড়াতে পারলেন না রুট, বাটলাররা। ১২.৫ ওভারে ৩০ রান দিয়ে পাঁচ উইকেট হেজলউডের। তিন উইকেট কামিন্সের ঝুলিতে। দুই উইকেট নেন প্যাটিনসন। বিপক্ষের ন’জনই ফিরে যান দশের কম রান করে। শুধুমাত্র জো ডেনলি ১২ রান করেন। 

হেডিংলের পিচ শুরু থেকেই পেসারদের সাহায্য করেছে। প্রথম দিন অলআউট হয় অস্ট্রেলিয়া। দ্বিতীয় দিন চা-বিরতি পর্যন্ত মোট ১৩টি উইকেটের পতন হয়। যার ১২টিই পেসারদের নেওয়া। প্রথম ইনিংসে রান পাওয়ার পরে দ্বিতীয় ইনিংসে সেই ফর্ম ধরে রাখতে পারলেন না ডেভিড ওয়ার্নার। ব্রডের লেগ কাটার ওয়ার্নারের পিছনের পায়ে আছড়ে পড়ে। ডি আর এস নিয়েও কোনও লাভ হয়নি। শূন্য রানে ফিরে যেতে হয় তারকা ওপেনারকে।