বারো দলের লিগে খেতাবের লড়াইতে থাকা চার ক্লাবের সূচির ভারসাম্য রাখতে নতুন সূচিতে পিয়ারলেসের দুটি ম্যাচ দিল আইএফএ। তিন প্রধানকে দেওয়া হল একটি করে ম্যাচ।

ইস্টবেঙ্গল, মহমেডান, মোহনবাগান, ভবানীপুর যেখানে ন’টি করে ম্যাচ খেলেছে সেখানে লিগ শীর্ষে থাকা পিয়ারলেস খেলেছে আটটি ম্যাচ। সে জন্যই শেষ রাউন্ডের আগে সব দলকে দশটি করে ম্যাচ খেলিয়ে নিতে চায় আইএফএ। আনসুমানা ক্রোমার দলের প্রথম ম্যাচ পড়েছে সোমবার। মহমেডানের বিরুদ্ধে। ২৩-এর পর ২৬ সেপ্টেম্বর পিয়ারলেস খেলবে রেনবোর সঙ্গে।

শুক্রবার ম্যাচ জিতে লিগের দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসা ইস্টবেঙ্গলের সঙ্গে মহমেডানের ছোট ডার্বিও ২৬ সেপ্টেম্বর। খেলা হবে যুবভারতীতে। এই সূচিতে মোহনবাগানের একটি ম্যাচ দেওয়া হয়েছে। ২৪ সেপ্টেম্বর কিবু ভিকুনার দল খেলবে সাদার্ন সমিতির সঙ্গে। আইএফএ চাইছে সেপ্টেম্বরেই লিগ শেষ করতে। তারা ঠিক করেছে ২৬ তারিখের পর লিগ খেতাবের লড়াইতে যে দলগুলি থাকবে তাদের একই দিনে
ম্যাচ খেলাতে।

এ দিকে এ দিনই ঘোষণা করা হল বাংলার সন্তোষ ট্রফির দল। তিন প্রধানের তো বটেই এমনকী পিয়ারলেসের কোনও ফুটবলারকেই প্রথম দুটি ম্যাচে পাচ্ছেন না কোচ রঞ্জন ভট্টাচার্য। নিজের ক্লাব দল জর্জ টেলিগ্রাফের চার জন ফুটবলার অবশ্য পেয়েছেন তিনি।

 এ বারের সন্তোষের গ্রুপ লিগের   খেলা হবে কল্যাণীতে। বাংলার প্রথম ম্যাচ ওড়িশার সঙ্গে। ২৪ সেপ্টেম্বর। পরের ম্যাচ ২৬ তারিখ বিহারের সঙ্গে। বাংলার কোচ রঞ্জন বললেন, ‘‘কলকাতা লিগ চলায় খেতাবের লড়াইতে থাকা কোনও দলই ফুটবলার ছাড়তে চাইছে না। গ্রুপ লিগের বাধা টপকে গেলে পরে সবাইকে পাওয়া যাবে আশা করছি।’’ প্রিমিয়ার লিগ চলায় কার্যত কোনও অনুশীলনে ছাড়াই খেলতে হচ্ছে বাংলাকে। রবিবার নির্বাচিত ফুটবলারদের ডেকে নিজেদের মধ্যে পরিচয় করিয়ে পরের দিন নামানো হবে খেলতে। এক সঙ্গে অনুশীলন না করে খেলতে নামলে কতটা সফল হওয়া যাবে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে ইতিমধ্যেই।