বিশ্বকাপ শুরুর আগে থেকেই অনেক বিশেষজ্ঞ বলে চলেছেন, এ বারে ব্যাটসম্যানরা শাসন করতে পারেন ক্রিকেটের এই মহাযজ্ঞ। তা হলে কি এ বারের বিশ্বকাপে কোনও দল পাঁচশো রানও তুলে দিতে পারে? অধিনায়কদের ‘মিডিয়া ডে’-তে প্রশ্ন ছুড়ে দেওয়া হয়েছিল কোহালির দিকে। কোহালি পাশে বসা ইংল্যান্ড অধিনায়ক অইন মর্গ্যানের দিকে তাকিয়ে বলেন, ‘‘আমার মনে হয় এটা ওদের উপরে নির্ভর করবে। সবার আগে পাঁচশো রান করার জন্য ইংল্যান্ড যেন খেপে উঠেছে!’’ 

পাঁচশো রান এখনও করতে না পারলেও ওয়ান ডে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ স্কোর ইংল্যান্ডেরই দখলে। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে গত বছর ৪৮১-৬ রান তুলেছিল ইংল্যান্ড। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সদ্য সমাপ্ত ওয়ান ডে সিরিজেও পরপর চার বার তিনশোর ওপরে রান তুলেছেন ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা। যে কারণে বিশেষজ্ঞরা এখন ইংল্যান্ডকেই অন্যতম শক্তিশালী দল বলছেন।

কোহালি অবশ্য এও বলে দিচ্ছেন যে, বিশ্বকাপের পরের দিকে বড় স্কোর না-ও দেখা যেতে পারে। ভারত অধিনায়কের মন্তব্য, ‘‘আমি এর আগেও বলেছিলাম, বিশ্বকাপে ২৬০-২৭০ রান তাড়া করাও কিন্তু খুব সোজা হবে না। বিশ্বকাপে ওই রানটা তাড়া করা ৩৬০-৩৭০ রান তাড়া করার মতো হয়ে দাঁড়াবে। প্রথম দিকে হয়তো কোনও কোনও দল বড় রান করার জন্য ঝাঁপাবে। কিন্তু প্রতিযোগিতা যত এগোবে, রানটা তত কমে আসবে। পরের দিকে আমি কিন্তু সে রকম বড় স্কোর দেখতে পাচ্ছি না। তখন আড়াইশো রান তুলেও কোনও দল জিতে যেতে পারে। এটাই বিশ্বকাপ খেলার চাপ।’’

দিন দুয়েক আগেই ইংল্যান্ড দলে সুযোগ পাওয়া জোফ্রা আর্চার বলেছিলেন, ‘‘বিশ্বকাপে কোহালির উইকেটটা পাওয়াই আমার লক্ষ্য।’’ যে কথা কোহালিকে বলা হলে তিনি হেসে বলেন, ‘‘তাই নাকি? আমি জানতাম না। আমার কাছে এটা খবর। মর্গসের (অইন মর্গ্যান) কাছেও বোধ হয়।’’ তার পরেই যোগ করেন, ‘‘আসলে আমরা এ সব জিনিস নিয়ে মাথা ঘামাই না। আমাদের লক্ষ্য থাকে একটা ব্যাপারে। কী ভাবে দলের কাজে আসব। দলের হয়ে প্রতি ম্যাচে কিছু করতে পারলে আমি ভীষণ গর্বিত হই। তবে জোফ্রা এটা বললে আমি বলব, এটা একটা বিরাট প্রশংসা। ও নিজে বিশ্বমানের এক জন বোলার।’’

কোহালি বলছেন, ‘‘গত দু’বছরে আইপিএলে জোফ্রাকে দেখছি। ইংল্যান্ড যে ওকে তাড়াতাড়ি বিশ্বকাপের মতো একটা প্রতিযোগিতায় খেলতে নামাচ্ছে, তার কারণ আছে।’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘জোফ্রা এক্স ফ্যাক্টর হতে পারে। ওর দক্ষতা বাকিদের চেয়ে আলাদা।’’